শনিবার, এপ্রিল ২০, ২০২৪
Homeজাতীয়আশুলিয়ায় জমি দখলে বাধা দেওয়ায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার অভিযোগ

আশুলিয়ায় জমি দখলে বাধা দেওয়ায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার অভিযোগ

মোঃ মনির মন্ডল:  জাল দলিলে জমি দখল করতে না পেরে, জনপ্রিয় রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব ও আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহবায়ক কবীর হোসেন সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলায় হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে। অন্যদিকে প্রিয় নেতার নামে এহেন মিথ্যা মামলা দায়েরের ঘটনায় চাপা ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে নেতাকর্মীদের মাঝে। তারা বলছেন প্রশাসন কি তদন্ত ছাড়াই মামলা নেওয়া শুরু করছে , নাকি অন্য কিছু? ।

ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক মোঃ নুরুল আমিন সরকার বলেন, কবির সরকারের রাজনৈতিক সুনাম নষ্ট করার জন্য একটি কুচক্রিমহল নানান অপপ্রচার আর মিথ্যা ষড়যন্ত্রমূলক মামলার মাধ্যেমে হয়রানীর চেষ্টা করছে। প্রশাসনের কাছে জোরালো দাবী জানাচ্ছি আপনারা সঠিকভাবে তদন্ত করে দেখুন, তাহলে থলের বেড়াল বেরিয়ে আসবে। প্রকৃত অপরাধীরাই নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে এধরনের মিথ্যাচারের আশ্রয় নিচ্ছে।

স্থানীয় আমিনুল ইসলাম সরকারসহ অনেকেই সাংবাদিকদের জানান, রহমান সরকার ও তার পুত্র উজ্জল সরকার ও হামিদ সরকার ওরফে শাহাজান, আঃ আজিজ , মোতালেব সরকার, মামুন সরকার এলাকার চিহ্নিত ভুমিদস্যু ও মামলাবাজ। এরা জাল দলিলের মাধ্যেমে মানুষের জমি জবর/দখল করে, তাদের কারনে বহু লোক তাদের ভিটা মাটি হারিয়েছে। প্রতিবাদ করলে মিথ্যা মামলা ও হামলা করে সর্বশান্ত করে। যে কারনে তাদের বিরুদ্ধে সহজে কেউ মূখ খুলতে সাহস পায়না। গত ১৩/০১/১৮ ইং তারিখে আশুলিয়া যুবলীগের আহবায়ক কবির হোসেন সরকারের ক্রয়কৃত ৪৯ শতাংশ জমি দখল করতে চেষ্টা করে উজ্জল সরকার গংরা, প্রতিবাদ করলে আঃ বারেক মন্ডলকে পিটিয়ে এবং কুপিয়ে আহত করে তারা। এরপর উল্টো যুবলীগ নেতা কবির সরকার,বারেক মন্ডলসহ কয়েকজনের নামে মিথ্যা চাদাঁবাজীর মামলা দায়ের করে। সরেজমিনে খোজ নিতে গেলে দেখা যায় , পূর্ব বাগবাড়ি মৌজার আরএস খতিয়ান-৭, আরএস দাগ নং -১০৮, ১০৯, ১১০, পরিমান ৪৯ শতাংশ জমিতে একটি পুরাতন সাইনবোর্ড রয়েছে ,

সে অনুযায়ী জমির মালিক মোহাম্মদ আলী গং, বায়না সুত্রে মালিক মোঃ কবির হোসেন সরকার। স্থানীয়রা জানায়, আমরা জানি এই জমিটির মালিক মোহাম্মদ আলী গং, বায়না ও ক্রয়সুত্রে মালিক মোঃ কবির হোসেন সরকার। আর সংঘর্ষের ঘটনা জানতে চাইলে তারা জানান, শুনেছি বারেক মন্ডল নামের একজনকে হামলা করে আহত করেছে উজ্জল সরকার ও তার লোকজন। তবে গোলাগুলির কোনও প্রকার শব্দ তারা শুনেননি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে যুবলীগ নেতা মোঃ কবির হোসেন সরকার জানান, ৫/৬ বছর পূর্বে উক্ত জমিটি আমি ক্রয় করি এবং ভোগ করে আসছি। মোঃ রহমান ও উজ্জল গংদের সাথে জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধ রয়েছে। তারা জাল দলিলের মাধ্যেমে আমার এই সম্পত্তি দখলের অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গত ১৩/০১/১৮ ইং তারিখে সকালে বারেক মন্ডল আমার জমিতে চাষাবাদের কাজ করছিল এমন সময় উজ্জল গংরা এসে তাকে ব্যাপক মারধর করতে থাকে।

এসময় তার ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে মেডিকেলে ভর্তি করে। এরপর তারা নিজেরা বাচতে আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা একটি মামলা দায়ের করে। এরপর বিভিন্ন গনমাধ্যেমে বিভ্রান্তমূলক তথ্য দিয়ে আমার সুনাম ক্ষুন্ন করাসহ আমাকে হয়রানীর চেষ্টা করছে। আল্লাহ আমাকে যে সম্পদ দিয়েছে তাতে আমার চাঁদাবাজী বা কারো সম্পদ আতœসাতের প্রয়োজন পড়ে না। আপনারা খোঁজ নিয়ে দেখেন রহমান সরকার ও উজ্জ্বল সরকার গং এর বিরুদ্ধে এলাকায় একাধিক জাল দলিলের মাধ্যমে জমি দখলের অভিযোগ রয়েছে। এলাকায় বেশীর ভাগ লোক তাদেরকে চিহ্নিত ভূমিদস্যু, সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজ হিসেবেই চেনে।

এবিষয়ে উজ্জ্বল সরকার বলেন, রেকর্ডীয় মালিক ঈসমাইল ও আব্দুল জব্বার কাছ থেকে এই জমিটি তমিজ উদ্দিন ক্রয় করে। পরে আমি এ জমিটি ক্রয় করে ৩০ বছর ধরে ভোগ করে আসছি। ১৩/০১/১৮ ইং তারিখ সকালে কবির সরকার ও তার লোকজন আগ্নেয়াস্ত্র সজ্জিত্ব হয়ে গুলি বর্ষণ করে আতংক সৃষ্টি করে জমি দখলের পায়তারা করে। পরে আমি তাদের বিরুদ্ধে জয়দেবপুর থানায় মামলা দায়ের করি। সংঘর্ষ জমি নিয়ে মামলা করলেন চাঁদাবাজি এমন প্রশ্ন করলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।

নিউজ টাঙ্গাইলের সর্বশেষ খবর পেতে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি অনুসরণ করুন - "নিউজ টাঙ্গাইল"র ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

- Advertisement -
- Advertisement -