ভূঞাপুরে সিমেন্ট ভর্তি একটি ট্রাক সকাল-সন্ধা আটকা ছিল

 

মো. ফরমান শেখ:

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর-নিকরাইল সড়কের বকচড়া নামক স্থানে একটি সিমেন্ট ভর্তি ট্রাক টানা দশ ঘন্টা সড়কে আটকা পড়ে থাকায় সকাল-সন্ধা সব ধরণের যানচলাচল বন্ধ ছিল। এতে জনদুর্ভোগ চরম ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ যাত্রীরা। এলাকাবাসীরা জানান, সকালে সিমেন্ট ভর্তি ট্রাকটি ভূঞাপুর থেকে হতে নিকরাইল যাওয়ার পথে এখানে আটকা পড়ে। অনেক চেষ্টা করেও ট্রাকটি উদ্ধার করতে পারেনি ট্রাক ড্রাইভার। এমন অবস্থায় ট্রাকটির চাকা ধীরে ধীরে নিচের দিকে চলে যায়। ট্রাকটি আটকা পড়ে থাকার কারণে দুপাড়ের শতশত যানবহনের দীর্ঘ লাইন পড়ে যাওয়ায় জনদুর্ভোগ চরমে উঠে। স্থানীয়রা আরো জানান, এখানে শুধু জনদুর্ভোগ তা নয় প্রতিদিনই ঘটছে নানা ধরণের ছোট বড় দুর্ঘটনা। ঐ সময় এক পর্যায়ে কথা হয় সিরাজকান্দী আব্দুল খালেক এর মেয়ে ৮ম শ্রেণির নাজমা খাতুনের সাথে। নাজমা জানান, নিকরাইলে গত কয়েক মাস আগে জেএসসি পরিক্ষা দেবার পথে এই সড়কে সিএনজি-অটোরিক্সা দুর্ঘটনায় আমার হাত-পায়ের বিভিন্ন জায়গায় ক্ষত হয়।

ট্রাক ড্রাইভার জয়নাল উদ্দিন জানান, সিমেন্ট ভর্তি ট্রাকটি নিয়ে এই সড়কে প্রায় দশ ঘন্টা ধরে আটকা রয়েছি। ট্রাকটি দ্রুত উদ্ধার না করতে পারায় এই জনর্ভোগ পোঁহাতে হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সকাল-সন্ধা ট্রাকটি আটকা থাকায় জনর্ভোগ চরমে উঠে। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় সন্ধায় ট্রাকটি উদ্ধার করে যানচলাচলের স্বাভাবিক হয়ে উঠে।

এ ব্যাপারে গোবিন্দাসী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান তালুকদার বাবলুর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে সংযোগ বিছিন্ন দেখায়। উল্লেখ, বিগত বছরের বর্ষার সময় যমুনার নদীর পানির তীব্র স্রোতে ভূঞাপুর-নিকরাইল সড়কের কয়েড়া এলাকায় (বকচরা) নামক স্থানে রাস্তাটি ভেঙ্গে যায়, এতে দীর্ঘ একমাস যানচলাচল বন্ধ থাকলে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে একটি বাঁশের সাঁকো তৈরী করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান। দু’মাস পর সাঁকোর পরিবর্তে বালু দিয়ে সড়কটি মেরামত করা হয়

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.