ব্রেকিং নিউজ :

ঘাটাইলে কারখানার গ্যাসের দুর্গন্ধে লেখাপড়া ব্যাহত

 

 

একটি কারখানার নিঃসৃত গ্যাসের দুর্গন্ধে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার সিদ্দিখালি নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়সহ চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লেখাপড়া মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শ্রেণিকক্ষসহ চারিদিকে পঁচা দুর্গন্ধের কারণে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে। এ নিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকার সাধারণ জনগণের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এলাকাবাসী জানায়, সিদ্দিখালী নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের দক্ষিণপাশে ‘প্যারাগন’ নামে একটি কারখানা গড়ে উঠেছে। এ কারখানাটি বিগত ছয় মাস ধরে মুরগির বিষ্ঠা ও মৃত মুরগি দিয়ে জৈব সার তৈরি করে আসছে। জৈব সার তৈরির সময় কারখানার ভেতর থেকে এক ধরনের গ্যাস নিঃসৃত হয়। এই পঁচা দুর্গন্ধযুক্ত গ্যাস এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সিদ্দিখালী, দুলালিয়া ও উত্তর লক্ষিন্দর এলাকার মানুষ রোগ-বালাইসহ বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।

এ ছাড়া সিদ্দিখালী নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, সিদ্দিখালী এবতেদায়ি মাদ্রাসা, মেধা সিঁড়ি কিন্ডার গার্টেন ও আদর্শ কিন্ডান গার্টেনের সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর লেখাপড়া মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে ক্লাস করার জন্য উপস্থিত হলেও কোম্পানির ওই নিঃসৃত গ্যাসে মনোযোগ হারিয়ে ফেলে তারা। শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে উপস্থিতি বাড়ানোর জন্য শিক্ষার্থীদের চাপ সৃষ্টি  করলেও সন্তোষজনক সাড়া পাচ্ছেন না। দুর্গন্ধের প্রতিকার চেয়ে প্যারাগন কোম্পানির কাছে আবেদন করলেও কোনো সাড়া মিলেনি। এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিন্দ্র চন্দ্র দাসসহ স্থানীয় জনগণ দুর্গন্ধ বন্ধের প্রতিকার ও শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার সুষ্ঠু পরিবেশের দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি আবেদন করেছেন।

প্যারাগন কোম্পানির সহকারী পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, জৈব সার তৈরির সময় নিঃসৃত গ্যাস দুর্গন্ধ ছড়ায়। তবে বর্তমানে অনেকটা নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রয়েছে বলে দাবি তার।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এ, কে, এম বলেন, বিষয়টি আমি অবহিত হয়েছি। লেখাপড়ার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে দ্রুত ওই কারখানা অপসারণ করা দরকার বলে মনে করেন তিনি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.