ব্রেকিং নিউজ :

সখীপুরে খালুর বিরুদ্ধে স্কুলছাত্রী ভাগ্নিকে ধর্ষণের অভিযোগ

এম সাইফুল ইসলাম শাফলু :
টাঙ্গাইলের সখীপুরে আপন খালুর বিরুদ্ধে সপ্তম শ্রেণির স্কুল ছাত্রী (১৪) ভাগ্নিকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠেছে। বুধবার রাতে খালু শামীম আহমেদ সামেশ মিয়াকে (৩৫) একমাত্র আসামি করে সখীপুর থানায় ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেছে ওই স্কুল ছাত্রী। পুলিশ বৃহস্পতিবার দুপুরে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে ওই ছাত্রীকে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছেন।
মামলা ও ওই ছাত্রী সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার দেওবাড়ী গ্রামের শামীম আহমেদ সামেশ (৩৫) স্কুলে যাওয়ার-আসার পথে তার শালিকার মেয়েকে টাকা ও বিভিন্ন জিনিসের প্রলোভন দেখিয়ে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এর কয়েকদিন পর বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে নির্জন বনের ভেতরে নিয়ে ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে বিষয়টি কাউকে না জানাতে বলা হয়। এরপর গত ৭ জুলাই ওই ছাত্রীকে বাড়িতে একা পেয়ে দ্বিতীয় দফায় ধর্ষণ করা হয়। পরে ওই স্কুল ছাত্রী অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ঘটনাটি তার মা-বাবার কাছে জানায়। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসার চেষ্টা করলে অভিযুক্ত শামীম আহমেদ সামেশ তাতে সাড়া দেয়নি।
এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুর রউফ তালুকদার বলেন, ‘বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করতে অভিযুক্ত শামীমকে বারবার ডাকা হলেও সে সাড়া দেয়নি। শামীম এলাকার একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী।
ওই ছাত্রীর মা বলেন, ‘আমার আপন বোনের জামাই আমার মেয়ের সর্বনাশ করতে পারে আমি তা কল্পনাও করতে পারিনি। আমি ওই পাষ-ের বিচাই চাই।’
এামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সখীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘বৃহস্পতিবার দুুপুরে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’
এ বিষয়ে অভিযুক্ত শামীমের মুঠোফোনে ফোন করা হলে তার স্ত্রী ফোন ধরে বলেন, ঘটনা সত্য হলে আমি আমার স্বামীর কঠিন বিচার চাই।’
সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাকছুদুল আলম বলেন, ‘এ বিষয়ে মামলা হয়েছে। আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে ও ছাত্রীকে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.