টাঙ্গাইলে অবৈধ ড্রেজার মেশিনে কল্পনা সূত্রধরের স্বপ্ন কেড়ে নিল

 

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক :
‘১২ বছর আগে স্বামীর বাড়ি ছেড়ে বাবার বাড়িতে ঠাঁই নিয়েছিলাম, ঘর সংসার করছিলাম এখানেই। কিন্তু সেই ঘরবাড়িও টিকলো না। সব ভেঙে পড়লো খাদে। ড্রেজার দিয়ে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন করায়ই আমাদের বাড়ির পাশে গভীর খাদের সৃষ্টি হয়। প্রবল বর্ষণের মধ্যে ঘরটি কাঁপতে থাকে। আমরা ঘর থেকে বের হয়ে যাই। কোন আসবাবপত্র বের করার আগেই চোখের সামনেই ১০ মিনিটে মধ্যে বসতঘরসহ ভিটাবাড়ি ভেঙে পড়ল।
মেজো মেয়ে এবার জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। ঘর থেকে মেয়ের বইপুস্তকও বের করতে পারিনি। স্বামী সুতারের কাজ করে দিনে যা আনে তাই দিয়েই কোনো রকমে সংসার চলে। এহন আমাগো থাকার জায়গাটুকুও রইলো না।’ এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন ভিটাবাড়ি হারানো টাঙ্গাইল জেলার বাসাইল উপজেলার হাবলা ইউনিয়নের করাতিপাড়া গ্রামের কল্পনা সূত্রধর।
জানা যায়, গত ২১ অক্টোবর বিকেলে টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার হাবলা ইউনিয়নের করাতিপাড়া এলাকায় কল্পনা সূত্রধরের প্রায় ৪শতাংশ জমির ওপর আসবাবপত্রসহ বসতঘর ভিটাবাড়ি নিমিষেই ড্রেজারে সৃষ্টি হওয়া খাদে পড়ে যায়। বিলীন হওয়া বাড়িটি দেখতে প্রতিদিন লোক ভির করছেন। ড্রেজার মালিকরা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ার কেউ মুখ খুলতে নারাজ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, কল্পনা সূত্রধরের বাড়ি ঘেঁষে বীরপুশিয়ার একটি প্রভাবশালী মহল বাংলা ড্রেজার বসিয়ে মাটি উত্তোলন করায় সেখানে গভীর খাদের সৃষ্টি হয়। সেই সৃষ্ট খাদেই কল্পনা সূত্রধরের বাড়িটি বিলীন হয়ে গেছে। এর কিছুদিন আগে এখানে একটি শ্মশানঘাটও ভেঙে ধ্বসে পড়ে।

বাসাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অসহায় পরিবারটিকে প্রাথমিকভাবে ২০ হাজার টাকা দেওয়া হবে। এছাড়াও সরকারিভাবে তাদের পুনর্বাসনের প্রক্রিয়া চলছে।

 

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.