ব্রেকিং নিউজ :

টাঙ্গাইলে ধর্ষিতা স্কুলছাত্রীর সন্তান প্রসব; ধর্ষককে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ

 

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক:
টাঙ্গাইলের বাসাইলে অভিযুক্ত বৃদ্ধ সোনা মিয়ার যৌনলালসায় স্কুলছাত্রী সন্তান প্রসব করেছে। ১৬ নভেম্বর টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেয় সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই কিশোরী মেয়েটি। নবজাতক কন্যা শিশুটির নাম রাখা হয়েছেÑ ইশরাক আহম্মেদ মৌ। এদিকে ধর্ষণের ঘটনায় প্রায় দুই মাস আগে অভিযুক্ত মুক্তিযোদ্ধা ৬৫ বছরের আনিসুর রহমান ওরফে সোনা মিয়া মুন্সি’র বিরুদ্ধে মামলা হলেও এখনো সে ধরা ছোয়ার বাইরে। পুলিশের ভূমিকা রহস্যজনক বলে অভিযোগ করেন ধর্ষিতার পরিবার।
জানা যায়, উপজেলার কাশিল ইউনিয়নের নথখোলা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা চার সন্তানের জনক সোনা মিয়া মুন্সি (৬৫) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী (১৪)কে ধর্ষণের অভিযোগ উঠে। ধর্ষণের ফলে ওই ছাত্রীটি গর্ভবতী হয়ে পড়ে। ধর্ষিত মেয়েটি করটিয়া আবেদা খানম গালস হাইস্কুল এন্ড কলেজের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী।
ধর্ষিতার পরিবার সূত্রে জানা যায়, সোনা মিয়া মুন্সি ছাত্রীটির পরিবার নিরীহ হওয়ায় বিভিন্নভাবে টাকাপয়সা দিয়ে সহযোগিতা করে আসছিলেন। এই সূত্র ধরে তিনি মেয়েটির বাড়িতে যাতায়াত করতেন। গত ৯ মাস আগে মেয়েটির মা তাকে সোনা মিয়ার বাড়িতে এক হাজার টাকার জন্য পাঠায়। সোনা মিয়া মেয়েটিকে একা পেয়ে ঘরের ভিতর নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ধর্ষণের বিষয়টি কাউকে না বলার হুমকি দেয় তিনি। মেরে ফেলার হুমকি দেয়ায় মেয়েটি বিষয়টি কাউকে জানায়নি। গত দুই মাস আগে মেয়েটির শারীরিক অবস্থা পরিবর্তন দেখে পরিবারের লোকজন ও স্থানীয়রা ধারণা করে হয়তো মেয়েটির পেটে পাথর জাতীয় কিছু হয়েছে। এ ধারণা নিয়েই করটিয়ার একটি ক্লিনিকে মেয়েটিকে আল্ট্রাস্নোগ্রাম করালে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা বলে ডাক্তার জানায়। পরে মেয়েটি তার পরিবারের কাছে ধর্ষণের বিবরণ দেন। পরে বিষয়টি অভিযুক্ত সোনা মিয়াকে জানালে তিনি মেয়েটির পেটের সন্তানটিকে নষ্ট করার জন্য এবং এক লাখ টাকা দিয়ে মিমাংসার কথা জানায়।
এ ঘটনায় ধর্ষিতা স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে গত ২ অক্টোবর বাসাইল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সোনা মিয়াকে একমাত্র আসামী করে মামলা দায়ের করেন।
ধর্ষিতা মেয়েটির মা বলেন, আমার এই একমাত্র মেয়েটিকে নিয়ে ভাইয়ের বাড়িতে থাকি। সোনা মিয়া বিভিন্নভাবে টাকা পয়সা দিয়ে সহযোগিতা করে আসছিলেন। মেয়েটিকে চাকরী নিয়ে দিবেন বলে বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত করতেন। গত ৯ মাস আগে এক হাজার টাকা ধার আনার জন্য মেয়েটিকে তার বাড়িতে পাঠালে সোনা মিয়া জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।
ধর্ষিতা ছাত্রী বলেন, সোনা মিয়া জোরপূর্বক ধর্ষণ করে এবং বিষয়টি কাউকে জানালে হত্যার হুমকি দেয়। সে জন্যই আমি ওই সময় কাউকে জানায়নি। ৯ মাস পর গত ১৬ নভেম্বর আমার কন্যা সন্তান জন্ম হয়েছে। ওই কিশোরী এখন তার মেয়েটিকে সোনা মিয়ার পরিচয়েই বড় করতে চান। সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা চেয়েছেন ওই কিশোরী।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামছুন নাহার স্বপ্না বলেন, ওই ছাত্রীর পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দেয়ার জন্য জনপ্রতিনিধিদের সাথে কথা বলেছি। আশা করছি কয়েকদিনের মধ্যে ওই পরিবারকে কিছু আর্থিক সহায়তা দিতে পারবো।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বাসাইল থানার এসআই মোহাম্মদ নাছিম বলেন, ওই ছাত্রীটি কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছে। মা ও মেয়ের ডিএনএ পরীক্ষা করার জন্য বিজ্ঞ আদালতে আবেদন করা হয়েছে। তিনি বলেন, মামলার পর থেকে অভিযুক্ত সোনা মিয়া পলাতক রয়েছে। তবে তাকে গ্রেফতার করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.