টাঙ্গাইলে বিএনপি অফিস ভাঙচুর

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক: টাঙ্গাইলে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে ভাঙচুর করেছে দলটির পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা। শুক্রবার দুপুরে শহরের ভিক্টোরিয়া রোডের কার্যালয়ে এ ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এসময় আশপাশের এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

গত কয়েকদিন ধরে নবগঠিত জেলা বিএনপির কমিটি নিয়ে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এরইমধ্যে নবগঠিত কমিটি কর্মী সম্মেলনের উদ্যোগ নেয়। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে আরও উত্তেজনা বৃদ্ধি পায়। এর ফলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো পক্ষকেই কর্মী সম্মেলন করার অনুমতি দেয়া হয়নি। এরপরেও জেলা বিএনপির নবগঠিত কমিটি পৌর এলাকার বালুচরায় কর্মী সম্মেলনের আয়োজন করে। সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমানকে প্রধান অতিথি করা হয়।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা শহরে আজ বিক্ষোভ মিছিল করে। এক পর্যায়ে উত্তেজিত ওই নেতাকর্মীরা জেলা বিএনপি কার্যালয়ে হামলা করে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

জেলা বিএনপি সূত্র জানায়, চলতি বছরের ২৬ মে কেন্দ্র থেকে জেলা বিএনপির ৩০ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে শামসুল আলম ওরফে তোফাকে সভাপতি এবং ফরহাদ ইকবালকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। সভাপতি শামসুল আলম আগের কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় কারাবন্দি সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টু এবং কেন্দ্রীয় যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলাতান সালাউদ্দিন টুকুর ভাই। পদবঞ্চিতদের অভিযোগ, সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ বেশির ভাগ পদেই সালাম পিন্টু পরিবারের অনুসারীদের বসানো হয়েছে।

জেলা বিএনপির সভাপতি কৃষিবিদ শামসুল আলম তোফা বলেন, বিএনপি জেলা কার্যালয়ে দুষ্কৃতিকারীরা হামলা করেছে। যেহেতু এদের সবাই বহিষ্কৃত তাই এরা কেউ বিএনপির নেতাকর্মী না। প্রশাসন নির্ধারিত জায়গায় অনুমতি না দেয়ায় অন্য একটি জায়গায় কর্মী সমাবেশ করছিলেন। ফাঁকা পেয়ে দুষ্কৃতিকারীরা অফিসে হামলা করে ভাংচুর করে এবং অফিস থেকে মালামাল চুরি করে। তিনি আরও বলেন, হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

টাঙ্গাইল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সায়েদুর রহমান হামলার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.