ব্রেকিং নিউজ :

সখীপুরে মুক্তিযোদ্ধা মোস্তাফা কামাল হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ

এম সাইফুল ইসলাম শাফলু: টাঙ্গাইলের সখীপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা কামাল (৬৬) হত্যার বিচার ও আসামীদের গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান করেছেন মুক্তিযোদ্ধারা। সমাবেশ থেকে স্থানীয় সাংসদ অনুপম শাহজাহান জয় আইন শৃংঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আসামীদের গ্রেফতারের জন্য এক মাসের আল্টিমেটাম দেন। অন্যথায় বৃহত্তর আন্দোলনের গড়ে তোলা হবে বলে ঘোষনা দেন। গতকাল শনিবার সকালে স্থানীয় তালতলা চত্বরে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সখীপুর পৌর মেয়র বীর মুক্তযোদ্ধা আবু হানিফ আজাদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় সাংসদ অনুপম শাহজাহান জয়, হামিদুল হক বীর প্রতীক, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শ.ম আমজাদ হোসেন, এম.ও গণি, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি কুতুব উদ্দিন আহমেদ, আব্দুল হামিদ খাঁন (নয়ামুন্সি), আব্দুল হালিম সরকার লাল, মজিবর রহমান চাঁন, এসএম আব্দুল্লাহ প্রমূখ।

মুক্তিযোদ্ধা ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১৯৭১ সালে টাঙ্গাইলের ১০ জন ছাত্র প্রথম মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন তাঁদের মধ্যে মোস্তফা কামাল অন্যতম। ২০১৪ সালের ২৭ নভেম্বর দুপুরে সখীপুর পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের প্রশিকা এলাকার বাসা থেকে বেড়িয়ে তিনি নিখোঁজ হন। ৪ দিন পর ১ ডিসেম্বর পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের গড়গোবিন্দপুর গ্রামের একটি জঙ্গলের পাশ থেকে গলা ও দু’পায়ের রগ কাটা অবস্থায় পুলিশ তাঁর লাশ উদ্ধার করে। ওই দিন রাতে মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা কামালের ছেলে রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে সখীপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন

তিন বছর পেরিয়ে গেলেও হত্যাকান্ডের কোন রহস্য উদ্ঘাটন করতে পারেনি পুলিশ। হত্যাকান্ডের রহস্য উদ্ঘাটনসহ খুনিদের গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে গত তিন বছরে চারবার মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল। এরপরও হত্যাকান্ডের রহস্য উদ্ঘাটন না হওয়ায় ক্ষোভ ও হতাশা প্রকাশ করেছেন মামলার বাদী ও নিহত মুক্তিযোদ্ধার ছেলে ওষুধ ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম। সর্বশেষ ২০১৬ সালের ১১ মার্চ সকাল ১০ টায় স্থানীয় মোখতার ফোয়ারা চত্বরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে এবং মিছিল নিয়ে স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় ও থানার সামনে বিক্ষোভ শেষে মুক্তিযোদ্ধা চত্বরে এসে সমাবেশ করেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.