ব্রেকিং নিউজ :

আর্জেন্টাইন সমর্থকদের আনন্দঅশ্রুতে ভাসালেন আর্জেন্টিনার জাতীয় ফুটবল দল

হার্টবিট বেড়ে যাওয়ার মতো এক ম্যাচ। আর্জেন্টাইন সমর্থকদের আনন্দঅশ্রুতে ভাসালেন আর্জেন্টিনার জাতীয় ফুটবল দল। এক সময়ে যেটাই অসম্ভব মনে হচ্ছিল আর্জেন্টিনার কাছে সেটাই করে দেখালো আর্জেন্টিনা। ভাগ্য এবং পারফরম্যান্স দুটোরই সহায়তা নিয়ে শ্বাসরুদ্ধকর এক ম্যাচে বিশ্বকাপ গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে নাইজেরিয়াকে ২-১ গোলে হারালো তারা। অন্য ম্যাচে আইসল্যান্ডকে ২-১ গোলে হারানোয় আর্জেন্টিনার কাজটা সহজ করে দিয়েছে ক্রোয়েশিয়া।

ক্রোয়েশিয়া সহজ করলেও সহজ হতে দেয়নি আফ্রিকান দেশ নাইজেরিয়া। প্রথমার্ধে পিছিয়ে থাকলেও দ্বিতীয়ার্ধে পেনাল্টি থেকে সমতায় ফেরে তারা। ম্যাচের একদম শেষদিকে ড্রয়ের প্রহর গুণতে থাকা নাইজেরিয়ানদের জন্য হতাশা নিয়ে আসেন মার্কস রোহো। বিশ্বের শত কোটি আর্জেন্টাইন ভক্তকে আনন্দে ভাসিয়ে তার ডান পায়ের শটে আর্জেন্টিনা চলে যায় দ্বিতীয় রাউন্ডে। আগের ম্যাচের দল থেকে চারজনকে ছাঁটাই করে নতুন করে দল সাজান কোচ হোর্হে সাম্পাওলি। ফরমেশনও পরিবর্তন করে ৪-৪-২ এ খেলিয়ে ফলও পান হাতেনাতে। ম্যাচে গোলের প্রথম সুযোগটি অবশ্য পেয়েছিল নাইজেরিয়া। ৯ মিনিটে আগের ম্যাচের জোড়া গোলদাতা আহমেদ মুসা দূর থেকে শট নিলেও তা গোলবারের এক ফুট উঁচু দিয়ে চলে যায়। এরপরই আর্জেন্টাইনদের জন্যে সেই কাঙ্ক্ষিত মুহূর্তটি আসে।

ম্যাচের ১৪ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে বানেগার অসাধারণ ক্রস থেকে বুক দিয়ে বল ঠেকিয়ে ডান পায়ের জোড়ালো শটে গোলরক্ষকের ডান দিক দিয়ে ডান কর্নারে আর্জেন্টিনাকে রক্ষা করার গোলটি করেন লিওনেল আন্দ্রেস মেসি। বিশ্বকাপে ৬৬২ মিনিটের গোলখরা কাটালেন মেসি। ২৭ মিনিটে আরো একবার গোলের সুযোগ পেয়েছিল আর্জেন্টিনা। মেসির বাড়ানো পাস থেকে হিগুয়াইন তার স্বভাবসুলভ ভুল করে গোলরক্ষকের গায়ে মারেন। ৩৪ মিনিটে আবারো সেই মেসিঝলক। এবার ফ্রি কিক থেকে নেয়া তার দুর্দান্ত শটটি গোলরক্ষককে পরাস্ত করতে পারলেও গোলবার বাধা হয়ে দাঁড়ায়। প্রথমার্ধে আর কোনো গোলের সুযোগ না পেলে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই গোল শোধে মরিয়া হয়ে খেলতে থাকে নাইজেরিয়া। সুযোগও পেয়ে যায় তারা। ৫১ মিনিটে ডি বক্সের ভেতর নাইজেরিয়ান ফুটবলারকে ফেলে দেন মাচেরানো। রেফারি সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন। ঠাণ্ডা মাথায় স্পট কিক থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান ভিক্টর মোসেস। তার গোলে সমতায় ফিরে যেন প্রাণ ফিরে পায় নাইজেরিয়া।

অন্যদিকে, পরের রাউন্ডে যেতে হলে আর্জেন্টিনার চাই জয়। এমন চিন্তিত মন নিয়ে খেলতে গিয়ে বারবারই ভুল পাস দিচ্ছিলেন আর্জেন্টাইন ফুটবলাররা। ম্যাচের ৮১ মিনিটে গোলের সহজ সুযোগ পেয়েছিলেন হিগুয়াইন। কিন্তু গোলমুখের সামনে বল পেয়েও গোলবারের উপর দিয়ে মারেন। তারপরেই আসে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। ৮৬ মিনিটে মার্কাদোর ডান পাশ থেকে বাড়ানো ক্রসে বা-পাশ থেকে উড়ে এসে ডান পায়ের দুর্দান্ত শটে গোল করেন মার্কস রোহো। তার ওই গোলে আনন্দে মেতে ওঠে পুরো গ্যালারিসহ সারা বিশ্বের আর্জেন্টাইন ভক্তরা।

ম্যাচের শেষদিকে সময় ক্ষেপণের জন্য মেসি হলুদ কার্ড পেলেও তা আর্জেন্টিনার জয়ে কোনো বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। ২-১ ব্যবধানে ম্যাচ জিতে দ্বিতীয় রাউন্ডে ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে আর্জেন্টাইনরা। অন্যদিকে ৩ পয়েন্ট নিয়েও বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিতে হলো নাইজেরিয়াকে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.