News Tangail

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের নামে টাঙ্গাইলে দালালদের প্রতারণা

শুভ্র মজুমদার,কালিহাতী প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার দশকিয়া ইউনিয়নে খাস মগড়া গ্রামের অসহায় সম্বলহীন মিষ্ট ঋষির স্ত্রী সাগরী ঋর্ষি (৩৫)। মৃত স্বামীর পৈতৃকসূত্রে পাওয়া দুচালা একটি ঘর থাকলেও অভাবের কারনে সেটি মেরামত করতে পারেনি। দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল একটি ভালো ঘরে থাকার। কিন্তু বিধবার সে স্বপ্ন পূর্ণ হয়নি।

গত ৭ মাস পূর্বে স্থানীয় ইউপি সদস্য আ: কাদের জানান, ২০ হাজার করে টাকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী অসহায় মানুষদের ২ মাসের মধ্যে ১ লাখ টাকা মূল্যের একটি করে ঘড় তৈরী করে দিচ্ছে। স্থানীয় ওই মেম্বারের কথামতো দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে ৬ হাজার টাকার হাঁস, মুরগী, ছাগল বিক্রি করে এবং বাকী টাকা

স্থানীয়দের কাছ থেকে ধার দেনা করে সংগ্রহ করে একমাসের মধ্যে তাকে ঘর দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। আজও সেই প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণহীন প্রকল্পের ঘরের দেখা মেলেনি। টাকাও ফেরৎ পাচ্ছেনা গৃহবধু সাগরী ঋষি। অন্য একজন উপজেলার দশকিয়া পূর্বপাড়ার গ্রামের জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী মালেকা বেগম পঙ্গু স্বামী নিয়ে একচালা একটি ঘরে কোনরকমভাবে বসবাস করে আসছে। মালেকা বেগম ভালো একটি ঘর পাওযার আশায় স্থানীয় আরেক দালালকে ২০ হাজার টাকা দিয়ে ঘরের দেখা পাচ্ছেনা এবং কি টাকাও ফেরৎ পাচ্ছেনা।

এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে একটি দালাল চক্র অসহায় দরিদ্র মানুষের নিকট থেকে ঘর পাইয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। দশকিয়া ইউপি সদস্য আ: কাদের খাস মগড়া ঋষি বাড়ীর ৩০ টি পরিবারের কাছ থেকে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ফলে একদিকে সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে অন্যদিকে অসহায় দরিদ্র মানুষেরা প্রতারিত হচ্ছে। কর্তৃপক্ষের নিকট দ্রুত বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবী ভুক্তভোগীদের।

এ বিষয়ে কালিহাতী উপজেলার নির্বাহী অফিসার মুছাম্মৎ শাহীনা আক্তার জানান, প্রধানমন্ত্রীর জমি আছে, ঘর নেই নামের আশ্রায়ণ প্রকল্পটি অসহায় দরিদ্র মানুষদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করা। এ প্রকল্পের নাম করে যদি কোন ব্যাক্তি টাকা নিয়ে থাকে এ বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.