ব্রেকিং নিউজ
News Tangail

সাকিবের যত নার্ভাস ৯০!

জুবায়ের আহমেদ,সিনিয়র ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশের জান সাকিব আল হাসান, এটি একটি বিজ্ঞাপনের ডায়লগ হলেও বাংলাদেশ ক্রিকেটে সাকিবই প্রেরণা শক্তি, যিনি তিন ফরম্যাটে বিশ্বসেরা হয়ে একটি ভঙ্গুর দলকে আত্মবিশ্বাসী করে তোলেছেন, আমরাও পারি বিশ্বসেরা হতে সেটা প্রমাণ করেছেন। ব্যাটে বলে পারফর্ম করতে জুড়ি নেই সাকিবের, বাংলাদেশের জয়ের ম্যাচ কিংবা পরাজয়ের ম্যাচ, রেকর্ড বলে সব জায়গাতেই অনন্য সাকিব।

তিনফরম্যাটেই নিয়মিত মিডল অর্ডারে ব্যাট করেন সাকিব আল হাসান, ফলে বড় ইনিংস খেলতে গিয়ে বেশ চাপেই থাকতে হয় সাকিবকে, ওয়ানডেতে টপ অর্ডারেও প্রায়শ ব্যাট করেন, লম্বা ইনিংস খেলার বেশ সুযোগ থাকলেও অনেক সময় ভাগ্যের ছোঁয়া না থাকায় এবং তাড়াহুড়া করতে গিয়ে সেঞ্চুরী বঞ্চিত হতে হয়েছে সাকিব আল হাসানকে।

গতকাল উইন্ডিজের সাথে ৪৮ রানে জয়ের ম্যাচেও ৯৭ রান করে দূর্ভাগ্যজনক আউট হয়েছেন সাকিব। শুধু এবারই প্রথম নয়, বহুবার টেস্ট ও ওয়ানডেতে ৯০ রানের পর আউট হয়েছেন এবং অপরাজিত থেকেছেন সাকিব।

টেস্টে নার্ভাস ৯০-
টেস্ট ক্রিকেটে ২০০৮ সালে প্রথমবারের মতো শ্রীলংকার সাথে ৯৬ রান করে আউট হন তামিম। ২০০৯ সালে উইন্ডিজের সাথে জয়ের ম্যাচে ৯৬ রান করে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে উঠেন সাকিব। আউট না হলেও ৯৬ রানে অপরাজিত থেকে সেঞ্চুরী বঞ্চিত হওয়া কষ্টেরই, তবে সেবার ম্যাচসেরা হওয়ার পাশাপাশি সিরিজ সেরাও হয়েছিলেন সাকিব।

২০১০ সালে ইংল্যান্ডের সাথে আবারো ৯৬ রান করে আউট হন সাকিব। ২০১২ সালে উইন্ডিজের সাথে ৯৭ রান করে আউট হন। এর আগের ম্যাচেও ৮৯ রান করে আউট হন।

টেস্টে চার বার নার্ভাস ৯০ এর শিকার হওয়ার পাশাপাশি ৫ বার ৮০ উর্ধ্ব ইনিংস খেলে আউট হয়েছেন।

ওয়ানডে নার্ভাস ৯০
২০০৯ সালে শ্রীলংকার সাথে ৯২ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে উঠেছিলেন সাকিব, অবশ্য সে ম্যাচে পর্যাপ্ত রান না থাকার কারনেই সেঞ্চুরী করা হয়নি সাকিবের এবং সর্বশেষ গতকাল উইন্ডিজের সাথে ৯৭ রান করে আউট হন তিনি। ওয়ানডেতে ২বারই ৯০ রান করার পরও শতক হয়নি সাকিবের।

টি২০ ফরম্যাটে নার্ভাস ৯০ এর শিকার না হলেও পাকিস্তানের সাথে ২০১২ সালে ৮৪ রানের ইনিংস খেলে আউট হয়েছিলেন সাকিব। অবশ্য আউট হওয়ার আগে ইনিংসের মাত্র ৩ বল বাকি ছিলো।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.