ব্রেকিং নিউজ :
News Tangail

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড নদী ভাংগন রোধ, ভুমি পুনরুদ্ধার কাজসহ সিরাজগঞ্জের উন্নয়নের অংশীদার

মোঃ জহির রায়হান, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জ জেলার পাশ দিয়ে বয়ে গেছে বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রশস্ত ও ভাংগন প্রবন নদী যমুনা । আর এই নদী ভাঙ্গন রোধে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড। সিরাজগঞ্জ সদর , কাজিপুর , বেলকুচি, এনায়েতপুর, শাহজাদপুর ও চৌহালী থানা মিলিয়ে মোট ৮০ কিঃমিঃ এলাকা জুড়ে রয়েছে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ। ৮০ কিঃমিঃ বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধের মাঝে মাত্র ১০ কিঃমিঃ থেকে ১২ কিঃমিঃ বাধ এলাকায় নদী ভাংগন প্রবনতা রয়েছে। আর এর জন্য সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সার্বক্ষনিক ভাবে নজরদারি ও তদারকি করছে বলে সংশ্লিষ্ট মহল জানিয়েছেন।

কাজিপুরের নদী ভাংগন রোধ ও ভুমি উদ্ধার প্রকল্পের আওতায় ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দের জন্য অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে, সিরাজগঞ্জ সদর ও কাজিপুরের ৪ কিঃমি নদী তীর সংরক্ষনের কাজ চলমান আছে যার বেশ কিছু অংশের কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়ে গেছে আর বাকী অংশের কাজ আগামী মার্চের মাঝেই শেষ হবে বলে জানিয়েছেন সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী আবুল কাশেম ফজলুল হক।

২০১৭ সালের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া ২১ কিঃমিঃ বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ ইতিমধ্যেই মেরামত করা হয়েছে যাতে সাধারন মানুষ বন্যার হাত হতে রক্ষা পায়।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্র্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান- ক্যাপিটাল ড্রেজিং প্রকল্পের আওতায় নদী ভাংগন রোধ শুধু নয় ভূমি পুনরুদ্ধারের কাজও করছে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড। সিরাজগঞ্জ সদরে ক্রসবার ১ ,২, ৩, ৪ নির্মানের মাধ্যমে প্রায় ৪ হাজার একর জমি পুনরুদ্ধার করা হয়েছে। ক্রসবার ৩ ও ৪ সংযোগ করে এই সম্পুর্ন অংশ মাটি দিয়ে ভরাট করা হবে ইকোনমিক জোন প্রতিষ্ঠা করার জন্য। এতে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৫১৯ কোটি টাকা।

প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সিরাজগঞ্জবাসীকে উপহার স্বরুপ ক্রসবার ১ ও ক্রসবার ২ এর মাঝের জায়গায় আন্তর্জাতিক মানের অলিম্পিক ভিলেজ নির্মানের ব্যবস্থা করেছেন। আর এই প্রকল্পের কাজ করবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, এই জন্য ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান উক্ত এলাকা পরিদর্শন করে গেছেন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এবং অধ্যাপক ডাঃ হাবীবে মিল্লাত মুন্না এমপির নির্দেশনা ও পরামর্শে কাজিপুর অংশে ৩ টি ক্রসবার ও শাহজাদপুর অংশে ৪ টি ক্রসবার নির্মান করা হবে বলে আরো জানিয়েছেন সিরাজগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্র্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম। তিনি বলেন – শুধু বরাদ্দ আর প্রকল্প নয় কাজের মান , স্থায়ীত্ব সর্বোপরি সাধারন জনগনের নিকট আমাদের যে দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহিতা আছে ঠিক সেই ভিত্তিতেই সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড সকল কাজ সম্পাদন করছে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.