টাঙ্গাইলে গাছের সাথে ফাঁস দিয়ে আত্নহত্যা; পকেট থেকে ২টি চিরকুট উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে গাছের সাথে ফাঁস দিয়ে থাকলেও বিষয়টি রহস্যজনক মৃত্যু বলে ধারণা করছে এলাকাবাসী। কারণ ফাঁস দিলে শুধুমাত্র গলায় আঘাতের চিহ্ন থাকাটা স্বাভাবিক কিন্তু এই মৃত্যুতে নিহতের গোপনাঙ্গে জখম ও প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। তাই বিষয়টি রহস্যজনক বলে প্রাথমিক অবস্থায় ধারণা করা হচ্ছে।তবে নিহতের শার্টের পকেটে দুইটি চিরকুট পাওয়া যায়। ঘটনাটি বৃহস্পতিবার (৩০আগষ্ট) উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়নের চান্দুলিয়া গ্রামের আলেকের বাড়ির উত্তর পার্শ্বে লৌহজং নদীর পাড়ে পিটকেল গাছে ঘটে।

চিরকুটে যা লেখা ছিলো; ০১। “দক্ষিণ পাড়ার মালেক পাবে ২লক্ষ পঞ্চাশ হাজার। আর গোহাইল বাড়ির মালেক ৪লক্ষ পঞ্চাশ হাজার, মজনু পাবে ২০ হাজার”।

০২। “মালেক তোকে বলে যায় দক্ষিণ পাড়ার মালেককে দুইলক্ষ ৫০হাজার টাকা দিয়া দিও, যদি না দেও তাহলে মালেক তুমি ঠেকা থাকবা দুইলক্ষ ৫০হাজার টাকা দিয়া দিও। ইতি কেয়া মদ্দিন”।

তবে চিরকুটটি কি সে নিজেই লিখেছে নাকি কেউ আবার চক্রান্ত করে লিখে পকেটে রেখে ফাঁস দেয়ার মিথ্যা নাটক সাজিয়েছে কেই বা জানে তা? এখন শুধুমাত্র ময়না তদন্তের রিপোর্টই বলে দিতে পারে তার এ মৃত্যুটি আত্মহত্যা নাকি হত্যা।নিহত ব্যাক্তির বাড়ি টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়নের চান্দুলিয়া গ্রাম। সে চান্দুলিয়া গ্রামে মৃতঃ বদর উদ্দিনের ছেলে কিয়াম উদ্দিন (৫০)।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, নিজের আপন ভাইদের সাথে জমি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলছিলো।

এ বিষয়ে মির্জাপুর থানার সাব-ইন্সপেক্টর অনিল চন্দ্র বর্মণের সাথে যোগাযোগে তিনি সাংবাদিকদেন বলেন, খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করে থানায় আনা হয়। জি.ডি মূলে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলেই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.