ব্রেকিং নিউজ

বেলকুচি হবে সারা বাংলাদেশের মাঝে একটি অনন্য ওউন্নত উপজেলা- মোহাম্মদ আলী আকন্দ

মোঃ জহির রায়হান-সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃআসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলাতে মোহাম্মদ আলী আকন্দের আওয়ামীলীগ দলীয় সমর্থন ও মনোনয়ন প্রাপ্তির নিশ্চিত সম্ভাবনা আছে বলে জানিয়েছেন একাধিক নেতা-কর্মী। কারন হিসেবে তারা জানিয়েছেন, মোহাম্মদ আলী আকন্দ ক্লীন ইমেজের একজন সৎ, সুশিক্ষিত ও সর্বজন গ্রহনযোগ্য ব্যক্তি।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী মার্চ মাসে উপজেলা পরিষদের নির্বাচনী তফসীল ঘোষনা ও নির্বাচন অনুষ্ঠিত অতে যাচ্ছে। যে কারনে সারা বাংলাদেশেই শুরু হয়েছে উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে দলীয় সমর্থন ও মনোনয়ন প্রাপ্তির জন্য দৌড় ঝাপ ও গনসংযোগ।

এরই ধারাবাহিকতায় সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলাতেও শুরু হয়েছে একই রকম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তির জন্য চেষ্টা তদবির। জামায়াত-বিএনপি অধ্যুষিত এই উপজেলায় বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হন আওয়ামীলীগ নেতা মোহাম্মদ আলী আকন্দ।

উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় কর্তৃক জরীপে উপজেলা পরিষদ পরিচালনায় সেরা মার্ক্স অর্জনকারী, জাইকার জরীপে সারা বাংলাদেশের উপজেলা চেয়ারম্যানদের মধ্যে সেরা দশে অবস্থান ছিল তার দুইবার।

বেলকুচি উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে করা প্রকল্প “ কৃষকের ডিজিটাল ঠিকানা” এখন কৃষি মন্তনালয় কর্তৃক গৃহীত জাতীয় প্রকল্প। এটি প্রকৃত অর্থেই মোহাম্মদ আলী আকন্দের মেধা ও মননের জাতীয় স্বীকৃতি। এছাড়াও তিনি রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিযোগীতায় সেরা উদ্ভাবনী পুরস্কার অর্জন করেন।

১৯৬৯ সালের ১লা জানুয়ারী তারিখে সমেশপুরের একটি ঐতিহ্যবাহী পরিবারে জন্মগ্রহন করেন স্নাতক পাশকরা বর্তমান বেলকুচি উপজেলা আওয়ামীলীগের সফল সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আলী আকন্দ। তার পিতা মৃতঃ শামসুল হক আকন্দ একজন সৎ , ধর্ম ভীরু ও সমাজসেবক হিসেবে সুপরিচিত ছিলেন। মোহাম্মদ আলী আকন্দের সহধর্মীনী ছনিয়া সবুর আকন্দ বর্তমানে বেলকুচি উপজেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনৈতিক এই দম্পতির রয়েছে ২ টি কন্যা সন্তান। বড় মেয়ে হুমায়রা আনজুম তিতলী ও ছোট মেয়ে নির্বাচিতা আকন্দ দুই জনই উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত ও বাবার আদর্শিক চেতনাকে দৃড় ভাবে লালন করেন ।

মোহাম্মদ আলী আকন্দ বলেন, “ উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে আমি আমার সর্বোচ্চ মেধা ও শ্রম দিয়ে কাজ করার চেষ্টা করেছি। আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেলে তৃনমূলের নেতা কর্মীরা আবারো আমার জন্য কাজ করে বিজয় ছিনিয়ে আনবে বলে বিশ্বাস করি। আবার উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হলে বেলকুচি উপজেলাকে আধুনিক ও ডিজিটাল উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলবো”।

প্রসংগতঃ বেলকুচি উপজেলা ৬ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। ইউনিয়ন গুলো হল- বেলকুচি সদর ইউনিয়ন,রাজাপুর ইউনিয়ন,ভাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়ন,দৌলতপুর ইউনিয়ন,ধুকুরিয়াবেড়া ইউনিয়ন,বড়ধুল ইউনিয়ন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.