মধুপুরের নৃ-গোষ্ঠির পিউ ম্রংকে সংরক্ষিত আসনে মনোনয়নের দাবি

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক: পিউ ফিলোমিনা ম্রংকে সংরক্ষিত আসনে মনোনয়নের দাবি জানিয়েছেন মধুপুর গড়াঞ্চলের সমতল এলাকায় বসবাসকারি নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠি, গারো ও কোচ সম্প্রদায়ের লোকেরা।

নৃ-গোষ্ঠিদের দাবি গারো সম্প্রদায়ের লোকেরা অবহেলিত জনগোষ্ঠি। তাদের কথা বলার মতো নিজস্ব কোন নারী প্রতিনিধি জাতীয় সংসদে না থাকায় তারা বরাবরই অবহেলিত। তাদের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য মধুপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ও মধুপুর উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিসেস পিউ ফিলোমিনাম্রংকে জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনে মনোনয়নের দাবি জানিয়েছেন মধুপুর অঞ্চলের গারো ও কোচ সম্প্রদায়। পিউ ফিলোমিনাম্রং১৯৯৬ সাল থেকে মধুপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে এবং মধুপুর উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছে। তিনি এর আগেও ৩ বার সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন ফরম তুললেও তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি।

তিনি এমএসসি পাশ করে বর্তমানে মধুপুর জলছত্র কর্পোস খ্রীষ্টি উচ্চ বিদ্যালয়ে সিনিয়র বিএসসি শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা করছেন। আওয়ামীলীগের রাজপথের মিছিল মিটিংয়ে সক্রিয় ভাবে অংশগ্রহন করে থাকেন। দলের বিভিন্ন কর্মকান্ডে তিনি অত্যন্ত নির্ভিক সাহসী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে শুরু করে জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত প্রতিটি দলীয় নির্বাচনে তিনি দলীয় প্রার্থীদের পক্ষে নিরলস কাজ করে থাকেন। গড় এলাকার গ্রামের নারীদের সংগঠিত করে সভা সমাবেশ, মিছিল মিটিং ও ধর্মীয় প্রার্থনা সহ নানা বিষয়ে নারীদের দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাওয়ার পথ দেখাচ্ছেন। লাল মাটি এ অঞ্চলের গারো ও কোচ সম্প্রদায়ের লোকেরা বরাবরই নৌকার পক্ষে ভোট দিয়ে আওয়ামীলীগ প্রার্থীকে সহযোগিতা করে থাকেন। মধুপুরে এই আসনে নৃ-গোষ্ঠিদের ২০-২৫ হাজার ভোট আওয়ামীলীগের রিজার্ভ হিসেবে গণ্য করা হয়ে থাকে।

এ ব্যাপারে নৃ-গোষ্ঠি নারীদের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন আচিক মিচিক সোসাইটি নির্বাহী পরিচালক সুলেখাম্রংবলেন, আমাদের নৃ-গোষ্ঠি নারীদের উন্নয়নের জন্য মধুপুর লাল মাটির গারো সম্প্রদায়ের পিউ ফিলোমিনা স্রং কে সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন দেওয়ার দাবি জানাই।

মধুপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আদিবাসী নেত্রী যষ্ঠিনা নকরেক বলেন, আমাদের নৃ-গোষ্ঠি গারো সম্প্রদায়ের লোকেরা ২০-২৫ হাজার ভোট নৌকায় দিয়ে থাকে যার ফলশ্রুতিতে প্রতিবারই মধুপুরে নৌকা জয়লাভ করে। জাতীয় সংসদে আমাদের নারী গোষ্ঠির লোকদের প্রতিনিধিত্ব করার মতো কোন প্রতিনিধি নেই। এবার সংরক্ষিত আসনে নৃ-গোষ্ঠির পক্ষ থেকে মধুপুরে মনোনয়ন দেওয়ার দাবি জানাই।

বৃহত্তর ময়মনসিংহ আদিবাসী কালচারাল ডেভেলপমেন্ট এর সভাপতি মি. অজয় এ মৃ বলেন, নৃ-গোষ্ঠির নারীরা এমনিতেই পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠি। জাতীয় সংসদে আমাদের নৃ-গোষ্ঠি নারীদের নিজস্ব প্রতিনিধি নেই। আমাদের একজন নারী প্রতিনিধি প্রয়োজন।

জয়েনশাহী আদিবাসী উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ইউজিন নকরেক জানান, আমদের পিছিয়ে পড়া সংখ্যালঘু নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠি নারীদের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন দেওয়ার দাবি জানাই। সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন পেলে এই পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠি নারীদের এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ হবে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.