প্রবাসী সপ্তাহ উদযাপনে প্রবাসীদের নিয়ে ভাবছে সরকার

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, প্রবাসী দিবস উদযাপনের বিষয়টি এখনো সরকারিভাবে উত্থাপিত হয়নি। যতদিন না হয় ততদিন আমরা বেসরকারিভাবে দিবসটি উদযাপন করব। প্রবাসী সপ্তাহ উদযাপন করে দেশের উন্নয়নে প্রবাসীদের কীভাবে সম্পৃক্ত করা যায় সেটি নিয়ে চিন্তাভাবনা করছি।

সোমবার রাতে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে এনআরবি (নন রেসিডেন্স বাংলাদেশি) ডে উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সরকারের এ পরিকল্পনার কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। স্কলারস বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এবার দিবসটি উদযাপন করা হয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমি ইতোমধ্যে বাংলাদেশি মিশনগুলোকে এ ব্যাপারে নির্দেশনা দিয়েছি। প্রবাসীরা যেন তাদের একটি সংক্ষিপ্ত বায়োডাটা মিশনে জমা দেন। যাতে করে সরকার তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে। বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের অভিজ্ঞতা ও কর্মক্ষমতা কাজে লাগানোর জন্য একটি ডাটাবেজ তৈরি করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে সরকার।

তিনি বলেন, প্রবাসীরা যেন বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারে, সে জন্য আমার মন্ত্রণালয় থেকে সবধরনের সাহায্য-সহযোগিতা করব। দেশের ৪৯ ভাগ মানুষের বয়স ২৫ বছরের নিচে। এই জনগণকে আমাদের কাজে লাগাতে হবে।

প্রবাসীদের দেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আরও বিনিয়োগ ও প্রযুক্তি দরকার। এ বিষয়ে প্রবাসীরা আমাদের সাহায্য করতে পারেন।

অনুষ্ঠানে দিবস উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব দিলারা আফরোজ খান রূপা, ম্যাক্স গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রবাসী ব্যবসায়ী গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর এবং প্রবাসীসহ বিভিন্ন খাতের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমেদ বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে রেমিট্যান্সের অবদান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যারা অনেক কষ্ট করে দেশে বৈদেশিক মুদ্রা পাঠাচ্ছেন তাদের কল্যাণে ও মর্যাদা রক্ষায় সরকার বদ্ধপরিকর। তারাই বিদেশের মাটিতে দেশের মর্যাদা রক্ষায় কাজ করছেন। তাই দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয় এমন কাজ করা যাবে না।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.