৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যে শিল্প কারখানায় মিলবে গ্যাস সংযোগ

বর্তমান সরকার শিল্পবান্ধব সরকার। ২০২১ সালের আগেই মধ্যম আয়ের অর্থনীতির কাতারে দেশকে নিয়ে যেতে ঘটাতে হবে শিল্পের প্রসার। আর সেই লক্ষ্যে শিল্প কারখানার প্রসারের জন্য দীর্ঘ ৪ বছর বন্ধ থাকার পর  আবারও স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় শিল্প কারখানায় গ্যাস সংযোগ উন্মুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্ষমতাসীন সরকার। এ লক্ষ্যে জ্বালানি মন্ত্রণালয় গ্যাস সংযোগ নীতিমালাসহ একটি প্রাথমিক সার-সংক্ষেপ তৈরি করেছে। চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য এটি প্রধানমন্ত্রীর দফতরে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদনের পর এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হবে।

নতুন এই নীতিমালার আলোকে আবেদন করলেই ৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যেই শিল্প মালিকরা পাবেন গ্যাস সংযোগ। সরকারের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন, এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হলে বাড়তি গতি পাবে শিল্পখাত।

ঢাকা চেম্বার অব কমার্সের এক নেতা বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নের স্বার্থে শিল্পপ্রতিষ্ঠানে মানসম্মত ও নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ প্রয়োজন। মানসম্মত ও নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত করতে আলাদা শিল্প গ্যাস সংযোগের কোনো বিকল্প নেই। এ অবস্থায় শিল্প কারখানায় গ্যাস সংযোগ উন্মুক্ত করার সরকারের সিদ্ধান্তকে তিনি স্বাগত জানান এবং তা দ্রুত বাস্তবায়নের আবেদন জানিয়েছেন।

গেলো বছরের শেষ দিকে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি যুগে প্রবেশ করেছে দেশের জ্বালানি খাত। বর্তমানে দৈনিক প্রায় চার’শ পঞ্চাশ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস যুক্ত হচ্ছে জাতীয় সঞ্চালন গ্রিডে। এপ্রিলের মধ্যে এটি ১০০০ মিলিয়ন ঘনফুটে উন্নীত হতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে, এলএনজির পরিমাণ ১০০০ মিলিয়নে পৌঁছালেই উন্মুক্ত হতে পারে শিল্প-কারখানায় গ্যাস সংযোগ।

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতি-মাদকের বিরুদ্ধে সর্বশক্তি নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছেন। একই সঙ্গে দেশকে বিনিয়োগের নতুন এক উচ্চতায় নিয়ে যেতে চান। এজন্য প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ নেবেন। দেশের শিল্পোদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী সমাজ এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। তাদের মতে, জ্বালানি নিরাপত্তা তথা গ্যাস-বিদ্যুতের প্রয়োজনীয় চাহিদার বিষয়টি নিশ্চিত করলে শিল্প খাতে গতি আসবে এবং এর প্রভাব পড়বে দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে।

সরকারের নতুন এ সিদ্ধান্তে আবারও ঘুরে দাঁড়াবেন শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মালিকরা- এমনটি মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, নিরবিচ্ছিন্ন গ্যাস সংযোগ সুবিধা পেলে শিল্পকারখানায় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দেয়া সম্ভব। পাশাপাশি কম খরচে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়। এতে পণ্য উৎপাদন সহজ ও খরচ কম পড়ে। সর্বোপরি এর সুফল ভোগ করবে দেশবাসী।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.