ব্রেকিং নিউজ

সখীপুরে নীড়িবিলি আর শান্ত পরিবেশে বানিয়ারছিট সোনার বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়

এম সাইফুল ইসলাম শাফলু: বানিয়ারছিট সোনার বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়। ১৯৯৪ সালে সখীপুর থেকে ১২ কিলোমিটার পূর্ব উত্তরে ভালুকা উপজেলার সীমানা ঘেঁষে নীড়িবিলি আর শান্ত পরিবেশে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে ওঠে। ওই গ্রামেরই এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম ও ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান আলহাজ্ব মো. আবুল হোসেন মেম্বার ৩ একর ৫ শতাংশ জমির বিদ্যালয়টি গড়ে তুলেন। তিনি নিজেও ওই প্রতিষ্ঠানে ১ একর ৫ শতাংশ জমি দান করেন। তাঁর সাথে জমি ও অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করেন, আলহাজ্ব জমির উদ্দিন ২৫ শতাংশ, মোহাম্মদ তায়েজ উদ্দিন ২৫ শতাংশ, এবং আলহাজ্ব ছমির উদ্দিন ১ একর ৫০ শতাংশ ।

সখীপুর উপজেলা সদর থেকে ওই প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার দুটি রাস্তা রয়েছে , একটি কচুয়া বাজার হয়ে কাচা রাস্তা ধরে বানিয়ারছিট অপরটি বড়চওনা বাজার হয়ে দারিপাকা বাজার থেকে বানিয়াছিট। ১৯৯৪ সালে মাত্র ১৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। ১৯৯৬ সালের ১ জানুয়ারি প্রাথমিক স্বীকৃতি লাভ করে। ১৯৯৭ সালের ১ জানুয়ারি নবম শ্রেণি খোলার অনুমতি প্রদান করে শিক্ষা বোর্ড। বর্তমানে ওই প্রতিষ্ঠানে ৩২৫ জন শিক্ষার্থী বিভিন্ন শ্রেণিতে নিয়মিত অধ্যয়ন করছে। ভাল ফলাফল ও সুন্দর পরিবেশের দিক থেকে সখীপুরের হাতে ঘোনা কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এটি অন্যতম।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে অদ্যবধি প্রতিষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে যারা দায়িত্ব পালন করেছেন তাঁরা হলেন, আলহাজ্ব জমির উদ্দিন, ডা. মোহাম্মদ হাসমত আলী এবং বর্তমানে আলহাজ্ব মোহাম্মদ ফজলুল কাদের। যিনি অত্যন্ত সৎ ও নিষ্ঠার সাথে ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতির গুরু দায়িত্ব পালন করছেন। প্রতিষ্ঠাকালীন থেকে আজবধি নম্র ও ভদ্রতার সহিত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জনাব আবুল কাশেম ফজলুল হক।

তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীসহ মোট ১৫ জন শিক্ষক কর্মচারী নিয়মিত ওই প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাদানে কর্মরত আছেন। এসএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার্থীদের বিশেষভাবে দেখবালের জন্য রয়েছে অতিরিক্ত পাঠদানের সু-ব্যবস্থা । প্রতিদিন এসেম্বলী ক্লাশের মধ্য দিয়ে শ্রেণি কক্ষে পাঠদার কার্যক্রম শুরু করা হয়। দক্ষ ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কম্পিউটার শিক্ষক শিক্ষার্থীদের ডিজিট্যাল দেশ গড়ার সাথে তাল মিলাতে নিয়মিত মাল্টিমিডিয়ায় ক্লাশ ও হাতে কলমে ক¤িউটার শিক্ষা প্রদান করা হচ্ছে। লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায়ও বেশ এগিয়ে আছে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়াও বানিয়ারছিট সোনার বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের বহু শিক্ষার্থী আজ দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখছেন, তাদের মধ্যে সাহিত্যে রয়েছেন শাহরিয়ার রিপন, মেরিন ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে মাহবুব মোর্শেদ, বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে আছেন মোশারফ হোসেন এবং সেনাবাহিনীতে মো. হাসান মিয়া আরো অনেকে।

বিদ্যালয়ের বেশ কিছু সমস্যার কথা তুলে ধরে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেম ফজলুল হক বলেন, প্রতিষ্ঠানে ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রী বেশি হওয়ায় তাদের নিরাপত্তার জন্য বিদ্যালয়ের চারপাশে সীমানা প্রাচীর দরকার। এছাড়া শহীদ মুক্তিযোদ্ধা শামসুল হক নামে একটি ছাত্রনিবাস গড়ে তুলার জন্য ২০১০ সালে নাম ফলক উন্মোচন করা হলেও এর বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন। তিনি ওই অসম্পন্ন কাজটি সম্পন্ন করতে স্থানীয় সাংসদ এডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম ভিপি জোয়াহেরের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.