ব্রেকিং নিউজ

টাঙ্গাইলে প্রেম নিবেদন ও কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় এসিড নিক্ষেপের হুমকি স্কুলছাত্রীকে

ধনবাড়ী প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে বখাটের এসিড নিক্ষেপের ভয়ে প্রায় একমাস যাবত স্কুলে যেতে পারছে না মেধাবী জনৈক স্কুলছাত্রী। প্রেমের ডাকে সাড়া না দেয়ায় উপজেলার পাইস্কা ইউনিয়নের গাড়াখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ফাস্টগার্ল স্কুলছাত্রীর সারা শরীর এসিড মেরে ঝলসিয়ে দেয়ার হুমকি দিচ্ছে পাশের বান্দ্রা গ্রামের ফজল মিয়ার মাদকাসক্ত বখাটে ছেলে মানিক মিয়া (১৭) ও নুর মুহাম্মদের বখাটে ছেলে সাখাওয়াত হোসেন (২০)। ওই স্কুলছাত্রী পৌরশহরের বন্দটাকুরিয়া গ্রামের মো. মফিজুর রহমানের একমাত্র মেয়ে।

এ ব্যাপারে রোববার ভূক্তভোগি ওই স্কুলছাত্রীর বাবা মো. মফিজুর রহমান বাদি হয়ে ধনবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করছেন। এদিকে ধনবাড়ী-মধুপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার কামরান হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এবং স্কুলছাত্রীর বাবার সাথে কথা বলে মামলাটি এফআইআর এর নির্দেশ দিয়েছেন।

গতকাল রোববার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, বখাটে সাখাওয়াত ও মানিক দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসার পথে ওই স্কুলছাত্রীকে উক্ত্যত্য করে আসছিল। এরই জেরে গত জুলাই মাসে ধনবাড়ী নবাব ইনস্টিটিউশনে প্রাইভেট পড়ে বাড়ী ফেরার পথে তাকে এসিডের বোতল ও চাকু দেখিয়ে জোরপূর্বক ছবি তোলে সাখাওয়াত, মানিক ও তার বন্ধুরা। স্কুলছাত্রীর বাবা-মা এর প্রতিবাদ করায় গত ১৫ আগস্ট বাড়ী থেকে মধুপুর যাওয়ার পথে মানিকদের বাড়ির কাছে পৌঁছালে তার বাবা-মাকে মারধর করে মানিক ও তার বন্ধুরা। এ ঘটনা প্রথমে স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর মো. নজরুল ইসলাম তোতাকে জানালে তিনি শালিসী মীমাংসা করে দিতে চাইলে তালবাহানা করতে থাকে বখাটেদের প্রভাবশালী অভিভাকরা।

ওই স্কুলছাত্রী জানায়, প্রথমে মানিক তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়, সাড়া না দিলে মানিকের বন্ধু সাখাওয়াতও প্রেমের প্রস্তার দেয়। উভয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় ওরা দুইজন মিলে এসিড নিক্ষেপ ও চাকু মারার ভয় দেখায় তাকে। সেই থেকে প্রায় ১ মাস যাবত স্কুলে যেতে পারছে না ভূক্তভোগি ওই স্কুলছাত্রী। সে স্কুলে যেতে চায়। কিন্তু বখাটেদের ভয়ে স্কুলে যেতে পারছে না। আগামীকাল থেকে যাতে স্কুলে যেতে পারে এ জন্য স্থানীয় প্রশাসন ও প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্শন করেছে।

ওই স্কুলছাত্রীর বাবা মো. মফিজুর রহমান জানান, আমার মেয়েকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে দীর্ঘদিন যাবত প্রেম নিবেদন করে উত্ত্যক্ত করে এবং খারাপ প্রস্তাব দেয়। রাজি না হওয়ায় জোরপূর্বক ভয়ভিতি দেখিয়ে আমার মেয়ের সাথে আপত্তিকর ছবি উঠিয়ে ইন্টারনেটে ছাড়ার হুমকি দিতে থাকে। বিষয়টি একাধিকবার স্থানীয় কাউন্সিলর ও থানা পুলিশকে জানানো হয়েছে। প্রতিকার না পেয়ে অবশেষে গতকাল রোববার ধনবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করেছি।

মানিকের বাবা ফজল মিয়া জানান, আমার ছেলে মেয়েটার ছবি তোলে ভুল করেছে সেজন্য তো মেয়ের বাবা মফিজ আমার ছেলেকে মেরেছে কিন্তু আমি কিছু বলিনি।

স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর মো. নজরুল ইসলাম তোতা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, দ্বিতীয় নূসরাত দেখতে চাইনা। ওসির সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গাড়াখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমির হোসেন বেনু জানান, মেয়েটি আমার স্কুলের অষ্টম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী । তার রোল ০১। মেয়েটি গত ২০/২১ দিন যাবত স্কুলে অনুপস্থিত।

গাড়াখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি উপাধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম বেলাল জানান, ওসির সাথে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ধনবাড়ী থানর ওসি মজিবর রহমান জানান, এ ব্যাপারে স্কুলছাত্রীর বাবা মো. মফিজুর রহমান বাদী হয়ে গতকাল রোববার মামলা দায়ের করেছে। ধনবাড়ী-মধুপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার স্যারের নেতৃত্বে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। আসামী গ্রেফতারে তৎপরতা চলছে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.