ব্রেকিং নিউজ

ধর্মীয় অনুভূতির এক মামলায় লতিফ সিদ্দিকী খালাস

নিউজ ডেস্ক: ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে মাগুরায় করা একটি মামলায় খালাস পেয়েছেন সাবেক ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী।

বুধবার মাগুরার মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালত-২-এর বিচারক মাহবুবা শারমীন এ রায় দেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী ওয়াশিকুর রহমান কল্লোল বলেন, “এ রায়ে আমরা অসন্তষ্ট। কারণ মামলাটি দায়েরের পর আদালত লতিফ সিদ্দিকীকে সশরীরে মাগুরা আদালতে হাজির হবার নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু লতিফ সিদ্দিকী এ পর্যন্ত আদালতে হাজির হননি। বাদী এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন।”

২০১৪ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সিটির জ্যাকশন হাইটস হোটেলে এক অনুষ্ঠানে লতিফ সিদ্দিকি মহানবী হযরত মুহম্মদ (সা.), পবিত্র হজ, তাবলিগ জামাত সম্পর্কে অবমাননাকর ও বিতর্কিত মন্তব্য করেন বলে মামলায় অভিযোগ।

এই অভিযোগে ২০১৪ সালের ১৬ অক্টোবর মাগুরা সদরের বগিয়া গ্রামের বাসিন্দা সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ রফিকুল ইসলাম তুষার তার বিরুদ্ধে ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত হানার অভিযোগে আদালতে এ মামলাটি দায়ের করেন।

২০১৮ সালের ৭ মার্চ মামলায় অভিযোগ গঠন করা হয়।

২০১৪ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে টাঙ্গাইল সমিতির ওই অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের তৎকালীন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের প্রসঙ্গেও বিরূপ মন্তব্য করেন।

এরপর তাকে দলের সভাপতিমণ্ডলীর পদ ও মন্ত্রীত্ব থেকে অবসর দেওয়া হয় এবং দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।

টাঙ্গাইল-৪ আসনে চার বারের সংসদ সদস্য লতিফ সিদ্দিকী ২০০৯ সালে শেখ হাসিনার সরকারে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে পাঁচ বছর তা পালন করেন। ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ পের সরকার গঠন করলে তিনি দুই মন্ত্রণালয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির দায়িত্ব পান। কিন্তু তা পালনের এক বছর না পেরোতেই বিদায় নিতে হল তাকে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.