নিজেদের ডির্ভোস নিয়ে মুখ খুললেন সিদ্দিক ও মিম

ছোটপর্দার অভিনেতা সিদ্দিকুর রহমান শোবিজ অঙ্গনের জনপ্রিয় মুখ। অন্যদিকে স্ত্রী মডেল ও অভিনেত্রী মারিয়া মিমও শোবিজ পরিচিত। তিনি দীর্ঘদিন ধরেই মডেলিংয়ের সঙ্গে জড়িত। এই দম্পতির সংসারে রয়েছে সাড়ে ছয় বছরের একটি ছেলে সন্তান। দীর্ঘ সময়ের মনোমালিন্য রুপ নিতে যাচ্ছে ডির্ভোসে। এমনটাই জানিয়েছেন সিদ্দিকুর রহমানের স্ত্রী মারিয়া মিম।

মিম বলেন, তার সঙ্গে (সিদ্দিকুর) বনিবনা না হওয়ায় আমি আলাদা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু সে আমার ক্যারিয়ারকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে প্রতিনিয়ত। সে চায় না আমি আমার ক্যারিয়ারকে প্রতিষ্ঠিত করি। কিন্তু আমি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই। মাঝখানে অনেকদিন কাজ করতে পারিনি। বেশকিছু দিন ধরে আবারও কাজে ফেরার চেষ্টা করছি। কিন্তু এখন আমার প্রতিটা কাজে সে বাঁধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। আমাকে কোন কাজ করতে দিচ্ছে না। আমি যেখানেই কাজ করতে যাই, সেটা জানার পর সেখানে সে না করে দিচ্ছে।

মিম বলেন, গতকাল রানা মাসুদ পরিচালিত ‘এসকেবি কুকওয়ার’র বিজ্ঞাপনচিত্রে আমার কাজ করার কথা ছিল। পরিচালকের সাথে আমার কথাবার্তা সবকিছুই চূড়ান্ত এবং ডেটও দেওয়া ছিল। কিন্তু হুট করে পরিচালক আমাকে কিছু না বলে সেখানে অন্য একজনকে নিয়ে কাজটি করে। পড়ে জানতে পারি কাজটি সিদ্দিক করিয়েছে। এটা খুব অন্যায় হয়েছে। আমার স্বামীর বিরুদ্ধে আমার অভিযোগের শেষ নেই। কিন্তু একটা পরিচালক আমার ডেট নিয়ে এমনটা করতে পারেন না।

আমরা জানি আপনার সাড়ে ছয় বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। তার বিষয়ে কি ভাবছেন?  এমন প্রশ্নের জবাবে মিম বলেন, আপাতত আমি সন্তান নিয়ে ভাবছি না। সময় বলে দিবে সন্তান কার কাছে থাকবে।

অন্যদিকে মিমের এমন সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে থেকে যোগাযোগ করা হয় অভিনেতা সিদ্দিকুর রহমানের সাথে। তিনি আমাদের একান্তে জানান তাদের দীর্ঘদিনের সংসার আর মিমের এই সিদ্ধান্ত নেয়ার বিষয়ে।

সিদ্দিকুর বলেন, ২০১২ সালে আমাদের বিয়ে হয়। আমাদের ঘরে একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। এই মুহূর্তে কেন মিম এমন সিদ্ধান্ত নিচ্ছে আমার জানা নেয়। তবে আমি বলবো তার এমন সিদ্ধান্ত ভুল। আমার বাসায় থেকে খালুর বাসায় যাওয়ার নাম করে গেছে এরপর থেকেই তার মানসিকতা পরিবর্তন। কে বা কারা তার পিছনে ইন্ধন দিচ্ছে আমি বুঝতে পারছি না। আমি আপনাদের (গণমাধ্যম) মাধ্যমে মিমকে জানাতে চায়, আমি তার সাথে বসতে চাই। আমাকে নিয়ে তার সমস্যাগুলো আমি শুনতে চাই।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.