গাজীপুর সিটিকে লকডাউনের দাবি জানালেন মেয়র জাহাঙ্গীর

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনকে লকডাউনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন গাজীপুর সিটি মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম।

শুক্রবার তিনি সিটি কর্পোরেশনের অফিসে সাংবাদিকদের মাধ্যমে এ দাবি জানান।

এর আগে মেয়র জাহাঙ্গীর গত মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) নিজ উদ্যোগে নগরীর ৫৭টি ওয়ার্ড লকডাউন ঘোষণা করেছিলেন। এখন তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারের কাছে লকডাউন দাবি জানালেন।

মেয়র জাহাঙ্গীর বলেন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন একটি শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকা। এই এলাকায় শ্রমিকরা কারখানা বন্ধের ঘোষণায় বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন। পরে আবার অনেকে গাজীপুরে ফিরে এসেছেন।

তাই গাজীপুরের লাখ লাখ মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা চিন্তা করে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এবং ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা যেন লকডাউন করা হয় সেটা সরকারের কাছে দাবি জানাই।

এটি যাচাই-বাছাই করে সরকার যেন দ্রুত সিদ্ধান্ত দেয়। তা না হলে মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বেড়ে যাবে।

তিনি আরও বলেন, সিটি কর্পোরেশনের সকল কাউন্সিলকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যাতে কেউ বাসা থেকে বের না হয় এবং অযথা কোনো স্থানে আড্ডায় জড়ো না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে একজন একজন করে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কেনাকাটা করবে। অনেক মানুষ যাতে কোনো দোকানে এক সঙ্গে জড়ো হতে না পারে সে জন্য সকল মানুষকে কাউন্সিলররা অনুরোধ করে বুঝিয়ে বলবে।

মাত্র ১৫ দিন যদি আমরা যার যার বাসায় অবস্থান করতে পারি তাহলে আমাদের অনেক ঝুঁকি কমে যাবে।

মেয়র বলেন, এই সময়ে যারা অসহায়, দুস্থ, গরিব তাদের বাসায় স্থানীয় কাউন্সিলররা খাদ্য পৌঁছে দিবে। ত্রাণ বিতরণের ক্ষেত্রে যেন কেউ কোনো প্রকার স্বজনপ্রীতি না করতে পারে সেদিকে আমরা খেয়াল রাখছি। ত্রাণ বিতরণের জন্য একটু সময় লাখছে, কিন্তু পর্যায়ক্রমে আমাদের তালিকাভুক্ত সকলের বাসায় খাবার পৌঁছে যাবে।

অপরদিকে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতের লক্ষে মহাসড়কে একাধিক চেক পোস্ট বসিয়ে কাজ করছেন পুলিশ, র্যাব ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা। জেলা প্রশাসনের একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালতের টিম বাজার ও জনসমাগম এলাকায় অভিযান পরিচালনা করছে। দুপুর ১২টার পর সব ধরনের দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

নিউজ টাঙ্গাইলের সর্বশেষ খবর পেতে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি অনুসরণ করুন - "নিউজ টাঙ্গাইল"র ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.