ব্রেকিং নিউজ :

কালিহাতীতে পেনশনের টাকা উত্তোলনে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব! এজি অফিসে ভীড়, করোনা আতংকে জনসাধারণ

শুভ্র মজুমদার, কালিহাতী প্রতিনিধি: সারাদেশের ন্যায় টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবসর ভাতা প্রতিমাসের প্রথম সপ্তাহে বিতরণ করা হয়ে থাকে। এরই অংশ হিসেবে রবিবার (৩ মে) ৪ শতাধিক অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী কালিহাতী উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয়ে   সামাজিক দূরত্ব না মেনে ভীড় জমায়।এতে মহামারী করোনা ছড়ানোর আতংক বিরাজ করছে জনমনে। রবিবার সকালে উপজেলা  পরিষদ চত্বরে গিয়ে দেখা যায় শত শত অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাদের অবসর ভাতা উত্তোলনে কাগজ পত্র নেওয়ার জন্য উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসে সামাজিক দূরত্ব না মেনে ভীড় জমাচ্ছেন।

উপজেলা হিসাব রক্ষণ কার্যালয় থেকে ভাতা উত্তোলনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে সোনালী ব্যাংক কালিহাতী শাখায় হুমড়ি দিয়ে পড়ছে। ব্যাংক যেন মনে হচ্ছে একটি হাট। এতে ব্যাংকের সাধারণ গ্রহীতারা রয়েছে আতংকে। সোনালী ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলনকারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন গ্রাহক জানান, ৬০ বছরের উপরে সকলেই করোনা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী ৬০ বছরের উপরে সকল ব্যক্তিকেই ঘরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য মতে ৬০ বছরের উপরে সকল ব্যক্তি করোনা আক্রান্তের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। অথচ অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সবাই ৬০ বছরের উপরে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক দোকানদার জানান, আমরা পেটের দায়ে দোকান করে খাই। দোকান করার জন্য স্থানীয় প্রশাসন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আমাদের নির্ধারিত সময় বেঁধে দিয়েছে। নির্ধারিত সময়ের পর দোকান খোলা রাখতে পারিনা। করোনার নিয়ম কি শুধু আমাদের গরীবের জন্যই? তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে বলেন, উপজেলা চত্বরে অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যে ভীড় জমাচ্ছে সেটা আপনারা দেখেন না?

এ বিষয়ে উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা এমজি ফারুক আহমেদ চৌধুরী বলেন, আমি দূরে দূরে বসার জন্য বলেছি, তারা মানেনি।

উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এমএ মালেক ভূঁইয়া জানান, এটি নিয়ম বহির্ভূত কাজ হচ্ছে। এটা আমার দায়িত্ব না, এটা দেখার দায়িত্ব উপজেলা প্রশাসনের।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আরা নিপা বলেন, আমি ব্যস্ততার কারণে বিষয়টি দেখতে পারিনি। হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার সাথে কথা বলে পরবর্তীতে ছোট ছোট অংশে ভাগ করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দেয়ার চেষ্টা করবো।

নিউজ টাঙ্গাইলের সর্বশেষ খবর পেতে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি অনুসরণ করুন - "নিউজ টাঙ্গাইল"র ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.