শ্রমিকদের প্রতি চরম নিষ্ঠুরতা দেখাচ্ছে গার্মেন্টস মালিকরা

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক: করোনাভাইরাসের দুর্যোগেও চরম শ্রমিকদের প্রতি চরম নিষ্ঠুরতা দেখাচ্ছে গার্মেন্টস মালিকরা। কথায় কথায় শ্রমিকের চাকরি খাচ্ছেন তারা। এমনিতেই ঠিকমতো মজুরি পাচ্ছেন না, তার ওপর হঠাৎ চাকরিচ্যুত ঘটায় চরম বিপাকে পড়েছেন গার্মেন্টস শ্রমিকরা।

গার্মেন্টস শ্রমিক সংগঠন ও শ্রমিক নেতাদের সূত্রে জানা গেছে, গত দেড় মাসে করোনার মধ্যেই ৫০ হাজার গার্মেন্টস শ্রমিককে ছাঁটাই করা হয়েছে। যদিও সরকার এই সঙ্কটকালীন সময়ে শ্রমিককে চাকরিচ্যুত না করতে মালিকদের প্রতি আহবান জানিয়েছিল, কিন্তু মালিকরা সরকারের এই নির্দেশনা আমলে নেননি।

এদিকে গার্মেন্টস কারখানায় করোনায় আক্রান্ত হওয়া শ্রমিকের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। গত সপ্তাহে গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির গবেষণা তথ্যে উল্লেখ করা হয়েছিল সে সময় পর্যন্ত ৯৬ পোশাক শ্রমিক করোনায় আক্রান্ত হয়। সে সংখ্যা এখন দেড়শ’র কাছাকাছি বলে জানা গেছে। তা ছাড়া ৫০ ভাগ শ্রমিক এখনও এপ্রিল মাসের বেতন পাননি।

সার্বিক বিষয় সম্পর্কে শ্রমিক নেতা সিরাজুল ইসলাম রনি  বলেন, গার্মেন্টস মালিকরা এখনও প্রতিনিয়ত শ্রমিক ছাঁটাই করছেন। গত দেড় মাসে লে-অফ করায় বেকার হয়েছে ২০ হাজার শ্রমিক। আর ছাঁটাই করা হয়েছে আরও ২০-২৫ হাজার শ্রমিক। সব মিলে গত দেড় মাসে শ্রমিক বেকার হয়েছে ৫০ হাজারের কাছাকাছি। এদিকে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের বিরুদ্ধে এবং বেতনের দাবিতে প্রতিনিয়ত শ্রমিকরা বিক্ষোভ করছেন। নারায়ণগঞ্জ নগরীর চাষাঢ়ায় বকেয়া বেতনের দাবিতে দুটি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছেন। তারা শহীদ মিনারে সমাবেশ ও বিকেএমইএ কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন।

মঙ্গলবার দুপুরে ফতুল্লার বিসিকের ফাহিম নিটওয়্যার ও সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইলের আলপাইন নিট ফেব্রিকস লিমিটেডের দুই শতাধিক শ্রমিক এ বিক্ষোভে অংশ নেন। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। এ সময় শ্রমিকরা তাদের বকেয়া বেতন পাওয়ার আশ্বাস পেয়ে চলে যান।

পুলিশ ও শ্রমিকরা জানায়, সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইলের আলপাইন নিট ফেব্রিকস লিমিটেডের শ্রমিকরা তিন মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে নগরীর বিকেএমইএ’র সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। অন্যদিকে ফতুল্লার বিসিকের ফাহিম নিটওয়্যার কারখানাটি মার্চ মাসের বেতন দিয়ে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ওই কারখানার শ্রমিকরা এপ্রিল মাসের বেতন দাবিতে বিক্ষোভ করেন। তারা বিকেএমইএ’র কার্যালয়ে গিয়ে বিষয়টি অবহিত করেছেন।

শিল্পাঞ্চল পুলিশ-৪ নারায়ণগঞ্জ জোনের পরিদর্শক (ইন্টেলিজেন্স) শেখ বশির আহমেদ জানান, সিদ্ধিরগঞ্জের আলপাইন নিট ফেব্রিকস লিমিটেডের শ্রমিকরা বকেয়া বেতনের দাবিতে বিকেএমইএ’র সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন। মালিকপক্ষ মঙ্গলবারের মধ্যে কিছু শ্রমিককে অনলাইন ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে বেতন দেওয়া হবে। বাকি শ্রমিকদের আগামী বৃহস্পতিবার বেতন দেওয়া হবে বলে জানায়। এদিকে ফাহিম নিটওয়্যার কারখানাটি মার্চ মাসের বেতন দিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এ কারখানার শ্রমিকরা এপ্রিল মাসের বেতনের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে। পরে তারা বিকেএমইএ’র কার্যালয়ে গিয়ে মৌখিকভাবে বিষয়টি জানিয়ে চলে গেছেন।

তা ছাড়া করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যে মঙ্গলবারও গাজীপুরের দুটি পোশাক কারখানায় বকেয়া বেতন ও শতভাগ বেতনের দাবিতে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছেন। টঙ্গীর বিসিক এলাকায় রেডিসন গার্মেন্টস লিমিটেড, তারগাছ এলাকায় নাসা গ্রুপের লিজ কমপ্লেক্স লিমিটেড এ দুই পোশাক কারখানার শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেন।

গাজীপুর ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ ও শ্রমিকরা জানায়, দুপুর বিকাল ৩টার দিকে গাজীপুরের টঙ্গীসহ দুটি পোশাক কারখানায় বকেয়া বেতন ও পূর্ণ বেতনের দাবিতে কারখানার ভেতরে কর্মবিরতি করে বিক্ষোভ করে শ্রমিকরা। টঙ্গীর বিসিক এলাকা রেডিসন গার্মেন্টস লিমিটেড পোশাক কারখানায় মার্চ মাস ও এপ্রিল মাসের বেতনের দাবিতে কারখানার শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেন। অন্যদিকে তারগাছ এলাকায় লিজ কমপ্লেক্স লিমিটেড পোশাক কারখানায় শতভাগ বেতনের দাবিতে কারখানার শ্রমিকরা কর্মবিরতি করে কারখানার বিক্ষোভ করেন। শ্রমিকদের দাবি তারা ন্যায্য মজুরি পাচ্ছেন না।

গাজীপুরে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ সুপার সুশান্ত সরকার নিউজ টাঙ্গাইলকে জানান, শ্রমিকরা শ্রম আইন না মেনে বিক্ষোভ করেন। কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে শ্রমিকদের সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা চালিয়েও কাজ হচ্ছে না।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.