মির্জাপুরে দুই গ্রামে পৃথক হামলায় আহত ৫

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক: টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার দুইটি গ্রামে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় ৫জন গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতদের টাঙ্গাইল ও ঢাকায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা যায়, প্রথম ঘটনাটি গত ২৪ মে রবিবার রাতে উপজেলার লতিফপুর ইউনিয়নের ছলিমনগর নামাপাড়া ও দ্বিতীয় ঘটনাটি ঘটেছে ২৬ মে মঙ্গলবার রাতে উপজেলার ভাওড়া ইউনিয়নের শ্বশ্বধরপট্রি গ্রামে। উভয় ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ছলিমনগর নামাপাড়া গ্রামের মসজিদের কোষাধ্যক্ষ চান মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের রাজ্জাক মিয়ার ছেলে হাকিম মিয়া গংদের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। ২৪ মে সন্ধ্যার পর ওই মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকে খিচুরি খাওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়। সন্ধার পর মসজিদের পাশে সবুজ মিয়ার দোকানের কাছে মসজিদ কমিটির লোকজন রান্নার কাজ শুরু করেন।

এ সময় রাত ৮টার দিকে হাকিম মিয়ার নেতৃত্বে ১০/১২ জন ধারালো অস্ত্র নিয়ে হঠাৎ চান মিয়া, আলম মিয়া, জাহাঙ্গীর আলম ও শাকিল হোসেনকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে জামুর্কীস্থ্য স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

এ ঘটনায় চান মিয়ার ছেলে আনোয়ার বাদি হয়ে হাকিম মিয়া, রাজ্জাক, আল আমিন, জুয়েল, কালাম, ফারুক, লিপু ও বদরসহ কয়েকজনকে আসামি করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন৷

এদিকে ২৬ মে মঙ্গলবার রাতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে উপজেলার ভাওড়া ইউনিয়নের শ্বশ্বধরপট্রি গ্রামে প্রতিপক্ষের লোকজন সানোয়ার হোসেন ও রবি মিয়াকে কুপিয়ে আহত করেছেন বলে জানা গেছে। তাদের টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। সেখানে রবি মিয়ার অবনতি হলে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় সানোয়ারের ছোট ভাই এমারত হোসেন বাদি হয়ে আলী আকবর, আলাউদ্দিন, হামজা, আওয়াল, সাত্তার, সিদ্দিক ও বাবুল মিয়াসহ ১০জনকে আসামি করে মির্জাপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সায়েদুর রহমান জানান, দুটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা বিষয়টি তদন্ত করছেন বলে জানান।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.