ব্রেকিং নিউজ

সরকারি নির্দেশনা ও বাড়তি ভাড়ায় টাঙ্গাইলে চলাচল শুরু গণপরিবহণ

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক: সরকারি নির্দেশনা আর বাড়তি ভাড়ায় সোমবার (১ জুন) থেকে চলাচল শুরু করেছে গণপরিবহন। তবে এর সুফল নেই টাঙ্গাইল থেকে ছেড়ে যাওয়া ঢাকামুখী গণপরিবহনে। বাস ভাড়া বাড়লেও নামমাত্র যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে এ জেলার বাস সার্ভিস। এ সংখ্যক যাত্রী নিয়ে সন্তুষ্ট নয় পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা। তবে পরিবহন সেবার মান নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন যাত্রীরা। এছাড়াও চলছে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষায় পুলিশি নজরদারি।

জানা যায়, (১ জুন) থেকে গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দিয়েছে সরকার। এছাড়াও প্রতি সিটে একজন করে যাত্রী নেয়ার নির্দেশনা দেয়ায় বৃদ্ধি পেয়েছে ভাড়া। যার সুফলে টাঙ্গাইল থেকে ঢাকাগামী ৪০ সিটের এসি বাস সার্ভিস ‘সকাল সন্ধ্যা’ আর ‘সোনিয়ার’ বর্তমান ভাড়া সাড়ে ৪শ টাকা। এরআগে এ সার্ভিসের ভাড়া ছিল ৩শ টাকা। এছাড়া ৪০ সিটের নন এসি সিটিং বাস সার্ভিস ‘নিরালা সুপার’র ভাড়া এখন ২৫০ টাকা। যার আগের ভাড়া ছিল ১৬০ টাকা। এছাড়া ৪৫ সিটের ‘ধলেশ্বরী’ বাস সার্ভিসের ভাড়া বেড়ে হয়েছে ২শ টাকা। যার আগের ভাড়া ছিল দেড়শ টাকা।

পরিবহন শ্রমিকদের দেয়া তথ্যে জানা যায়, বাস চলাচল শুরু হলেও টাঙ্গাইল থেকে ঢাকাগামী যাত্রীর সংখ্যা খুবই কম। সরকার নির্ধারিত যাত্রী আর ভাড়া পেলে তাদের চলাচল সম্ভব হত। তবে এখন যাত্রী নেই বললেই চলে। যার ফলে ভাড়া বৃদ্ধিতে তেমন কোনো লাভ হচ্ছে না তাদের। এরপরও ভবিষ্যতের আশা নিয়ে চালাতে হচ্ছে তাদের।

বাস মালিক দুলাল বলেন, সবে তো শুরু হলো বাস চলাচল। তাই আজ ইনকাম পাওয়ার আশা করা যাচ্ছে না। দেখা যাক ভবিষ্যতে কী হয়।

তবে পরিবহন সার্ভিস নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন অসংখ্য বাসযাত্রী।

টাঙ্গাইল সদর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. মোশাররফ হোসেন জানান, টাঙ্গাইল থেকে বাসগুলো সরকারি স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে চলাচল করছে কিনা, যাত্রীরা ঠিকমতো মাস্ক ব্যবহার করছে কিনা এগুলো পরিদর্শন করা হচ্ছে। নির্দেশনা অমান্য হলে অইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইল জেলা বাস মিনিবাস মালিক সমিতির মহাসচিব গোলাম কিবরিয়া বড়মনি বলেন, সাধারণ মানুষের চলাচলের সুবিধার্থে আর ভাড়া বৃদ্ধির মাধ্যমে সীমিত আকারে গণপরিবহন চলাচলের নির্দেশ দিয়েছে সরকার। সরকারের স্বাস্থ্যবিধি পরিপূর্ণ মেনেই আজ টাঙ্গাইল থেকে বাস চলাচল শুরু হয়েছে।

এছাড়াও সরকারি স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণে কঠোর তদারকি চালিয়ে যাচ্ছে মালিক সমিতি কর্তৃপক্ষ। এ কারণে প্রতিটি গাড়িতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার আর স্প্রে ব্যবহার করাসহ ঘনঘন সিট পরিষ্কারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। মালিকদের সীমিত আয় আর শ্রমিক বেতন ঠিকমতো পরিশোধ করা সম্ভব হলেই তারা এই বাস সার্ভিস রীতিমতো চালিয়ে যাওয়ার আশা প্রকাশ করেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.