সখীপুরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যাওয়া ধর্ষক মোস্তফাকে ভূয়াপুর থেকে গ্রেফতার

নিজস্ব  প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের সখীপুরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী এক যুবতীকে জঙ্গলে নিয়ে ধর্ষণ করে পালিয়ে যাওয়া ধর্ষক মোস্তফাকে ১১দিন পর তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে গ্রেফতার করা হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যায় মেয়েটি মোস্তফা কামালের বিরুদ্ধে ধর্ষনের অভিযোগ এনে সখীপুর থানায় মামলা করলে ওই রাতেই ধর্ষকের ব্যবহৃত মুঠোফোন ট্র্যাগ করে টাঙ্গাইলের ভূয়াপুর উপজেলার গবিন্দাসী ইউনিয়নের বিলচাপড়া গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর মোস্তফা কামাল ওই প্রতিবন্ধী যুবতীকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে। রবিবার সকালে ধর্ষক মোস্তফা কামালকে টাঙ্গাইল আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। মেয়েটিরও ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে।

ধর্ষিতা ও তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত ২৬ মে বুধবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ওই যুবতী (২০) গরুর ঘাস কাটতে বাড়ির পাশে জঙ্গলের ধারে যান। এ সময় আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা যাদবপুর ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য শিউলী বেগমের বাসায় ভাড়া থাকা দিনমজুর ভূয়াপুর উপজেলার মোস্তফা কামাল (৩৬) জোরপূর্বক জঙ্গলে নিয়ে ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে মেয়েটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন দৌড়ে এসে মেয়েটিকে উদ্ধার এবং ধর্ষক মোস্তফাকে আটক করে উত্তমমাধ্যম দেন। খবর পেয়ে নারী ইউপি সদস্য শিউলী বেগম ৬নং ওয়ার্ডের আরেক ইউপি সদস্য বছির উদ্দিনকে সঙ্গে নিয়ে ওই মেয়েটির বাড়ি ছুটে আসেন। পরে ওই দুই ইউপি সদস্য বিষয়টি মীমাংসার কথা বলে ধর্ষক মোস্তফাকে বাসায় নিয়ে যান। পরদিন থেকে ধর্ষক মোস্তফাকে আর খোঁজে পাওয়া যাচ্ছিলনা এবং তার ব্যবহৃত মুঠোফোনটিও বন্ধ ছিল। ইউপি সদস্যদের কথায় ধর্ষককে হাতছাড়া করে দিশেহারা হয়ে পড়েন ওই নির্যাতিতা পরিবার। পরে তাদের পাশে দাঁড়ান নিউজ টাঙ্গাইল’র সম্পাদক এম সাইফুল ইসলাম শাফলু। পরে পালিয়ে যাওয়া ধষর্কেকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক বিচার চেয়ে নিউজ টাঙ্গাইলসহ আরো বেশকিছু পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করা হয়। প্রকাশিত সংবাদটি পুলিশ ও গোয়েন্দা বিভাগের নজরে আসে। সখীপুর থানা পুলিশের সহায়তায় শনিবার সন্ধ্যায় ধর্ষিতা মামলা করলে পুলিশ ওই রাতেই ভূয়াপুর থানা পুলিশের সহায়তা ধর্ষক মোস্তফা কামালকে গ্রেফতার করে সখীপুরে নিয়ে আসেন।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একে সাইদুল হক ভূইয়া বলেন, ধর্ষক মোস্তফা পালিয়ে গেলে শনিবার রাতে তার ব্যবহৃত মুঠোফোন ট্র্যাগ করে টাঙ্গাইলের ভূয়াপুর উপজেলার গবিন্দাসী ইউনিয়নের বিলচাপড়া থেকে গ্রেফতার করা হয়।গ্রেফতারকৃত মোস্তফা কামাল ধর্ষনের বিষয়টি স্বীকার করলে রবিবার আদালেতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

 

"নিউজ টাঙ্গাইল"র ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.