কৃষক ও কৃষিকে বাঁচাতে লড়ছেন টাঙ্গাইলের তরুণ কৃষিবিদ শাকিল

নিউজ ডেস্ক: ২০২০ সালে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃষি বিভাগে পড়ালেখা শেষ করেন। যে সময়ে চাকরির পেছনে ছোটার কথা, ঠিক তখন কৃষক ও কৃষিকে বাঁচাতে লড়ছেন একজন তরুণ কৃষিবিদ। ‘পড়ালেখা শেষ হলেই চাকরি করতে হবে, চাকরি না হলে ব্যর্থ’ এমন ভাবনা পাল্টে দিয়েছেন তিনি। দেখিয়ে দিয়েছেন, অর্জিত জ্ঞানের সঠিক ব্যবহারই শিক্ষার সফলতা। উদ্যোক্তা হয়েও মেধার বহিঃপ্রকাশ ঘটানো সম্ভব। এমনটা প্রমাণ করলেন টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার আটিয়া ইউনিয়নের গোমজানি গ্রামের তরুণ কৃষিবিদ শাকিল আহম্মেদ।

তিনি জানান, করোনাকালে শুরু করেন কৃষি জমিতে সবজি ও ফল চাষ। একই জমিতে ৮/১০ প্রকারের ফসল যৌথ চাষ করে কিভাবে পুরো জমিকে কাজে লাগানো যায়, তা শিখিছেন। প্রথমে স্কোয়াশ চাষ করেন। এরপর তার প্রকল্পকে ক্রমশ বৃদ্ধি করছেন। বিষ প্রয়োগ ব্যতিত পোকা দমন, ক্ষতিকারক সার ব্যবহার না করে কম্পোস্ট সারের ব্যবহার, পোকা পালন করে মাছ, মুরগি ও মাছের প্রাকৃতিক খাদ্য তৈরি, মালচিং পদ্ধতিতে চাষাবাদে পানি ও সারের অপব্যবহার রোধ করা, অনলাইনে কৃষকদের ঐক্যবদ্ধ করে পরামর্শের মাধ্যমে আধুনিকীকরণ করে কৃষিকাজে বিশেষ ভূমিকা রেখে অল্প দিনেই প্রশংসিত হচ্ছেন এই তরুণ।

শাকিল একই গ্রামের মো. আব্দুল করিমের ছেলে। দেশের কৃষি ও কৃষক রক্ষায় নিজেই কৃষক হয়ে মাঠে কাজ করছেন। কৃষি ও কৃষকদের আধুনিকরণ করতে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন তিনি। তাকে অনুসরণ ও তার পরামর্শ নিয়ে স্থানীয় কৃষকরা ক্রমশ আধুনিক হচ্ছেন। অধিক লাভবান হচ্ছেন কৃষি কাজে। শাকিলের ধারণা, দেশ ও দেশের মানুষকে বাঁচাতে হলে কৃষিকে বাঁচাতে হবে, দেশের কৃষককে বাঁচাতে হবে। রাষ্ট্রের অন্তিম মুহূর্তে রাষ্ট্র বৈদেশিক খাদ্য রপ্তানি করতে ব্যর্থ হলে তখন দেশের মানুষের খাদ্যের যোগান দেবে কৃষক। সেই কৃষকদের আধুনিক করতে চাকরির পেছনে না ছুটে ছুটছেন কৃষি ও কৃষকদের পেছনে। বিসিএস করে কৃষি কর্মকর্তা হওয়ার স্বপ্ন নেই শাকিলের। স্বপ্ন কৃষকদের আধুনিক করা।

কৃষিবিদ শাকিল আহম্মেদ বলেন, করোনাকালে যখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল, তখন পরিবার থেকে অল্প পুঁজি নিয়ে এক টুকরো জমিতে শুরু করি স্কোয়াশ চাষ। আধুনিক চাষাবাদে ফলন হয় পর্যাপ্ত। ফলে প্রথম বছরেই অর্ধ লাখ টাকা লাভ হয়। ২০২১ সালের বন্যায় ডুবে যায় সবজির জমিগুলো। বসে না থেকে পুকুর কিনে মাছের ওপর বিনিয়োগ করি। ফলে অর্থ সংকটে পড়ি। এসময় কিছু বিনিয়োগকারীর সাথে আমার পরিচয় হয়। কিছু প্রফেসরদের সাথেও পরিচয় হয়। ওই সময় ফার্মনেট এশিয়া নামের একটি অনলাইন ভিত্তিক কোম্পানি চালু করি। যার কাজ কৃষক-ভোক্তা ও বিনিয়োগকারীদের আধুনিক উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে সংযুক্ত রাখা। এখানেও সারা পাই যথেষ্ট।

বর্তমানে স্কোয়াশ ৪২ শতাংশ, ক্যাপসিকাম ৪০ শতাংশ, শসা ৫০ শতাংশ, সমন্বিত মিশ্র ফল ও সবজি চাষ ১২৫ শতাংশ জমিতে চাষাবাদ করছেন। সমন্বিত সবজি চাষের একই জমিতে রয়েছে পেঁপে, টমেটো, শসা, রেড ক্যাবেজ, ব্রোকলি, রক মেলন তরমুজ, পাতাকপি, লাউ ও লাল শাক। একটি জমিকে পুরোপুরি ব্যবহার করতে সমন্বিত চাষ শুরু করেন। ২৫৭ শতাংশ জমিতে বিনিয়োগ করেছেন প্রায় ৬ লাখ টাকা। ১০ লাখ টাকা বিক্রির টার্গেট নিয়ে কাজ করছেন তিনি। বর্তমানে তার উৎপাদিত সবজি ও ফল স্থানীয়দের চাহিদা মিটিয়েও রাজধানীতে যাচ্ছে। প্রায় শতাধিক কৃষক শাকিলের পরামর্শ ও সহযোগিতা নিয়ে কৃষিকাজে ব্যাপক সফলতা পাচ্ছেন। স্থানীয় কৃষক বাহাদুর, সেলিম মিয়া, কালাম মিয়া, সোহরাব মাস্টার জানালেন শাকিলের সহযোগিতার কথা।

দেলদুয়ার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সোয়েব মাহমুদ বলেন, শাকিল একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। আমি শাকিলে কৃষি প্রকল্পগুলো কয়েকবার পরিদর্শন করেছি। তার এসব উদ্যোগের পাশে সবসময় কৃষি অফিস থাকবে। ইতোমধ্যে নানা ধরনের পরামর্শ শাকিলকে দেওয়া হচ্ছে। তার এমন উদ্যোগ অবশ্যই প্রশংসনীয়।

নিউজ টাঙ্গাইলের সর্বশেষ খবর পেতে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি অনুসরণ করুন - "নিউজ টাঙ্গাইল"র ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.