ব্রেকিং নিউজ :

টাঙ্গাইলে রাত জেগে পেঁয়াজ ক্ষেত পাহারা দিচ্ছেন কৃষকরা

নিউজ টাঙ্গাইল ডেস্ক: টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে কৃষকরা সারা রাত জেগে পেঁয়াজ ক্ষেত পাহারা দিচ্ছেন। পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় চুরির ভয়ে তারা রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন। বাজারে নতুন পেঁয়াজ কিছু-কিছু আসতে শুরু করলেও দামে তেমন একটা প্রভাব পড়েনি। তবে দাম কিছুটা কমের দিকে। তারপরও পেঁয়াজের দাম থাকায় চুরির ভয়ে পেঁয়াজ ক্ষেতেই রাত জেগে পাহারা দিতে হচ্ছে কৃষকদের।

কৃষকরা জানান, ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যেই পুরোপুরি নতুন পেঁয়াজ বাজারে আসবে। নতুন পেঁয়াজ বাজারে আসলেই দাম অনেকটা কমে যাবে। অনেক কৃষক পেঁয়াজ চুরির ভয়ে অপরিপক্ব পেঁয়াজ বাজারে ভালো দাম পাওয়ায় বিক্রি করে দিচ্ছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার কয়ড়া গ্রামের কৃষক আজহারুল ইসলাম আজা, আব্দুল হালিম, কবির হোসেন, মুশুদ্দি দক্ষিণ পাড়া গ্রামের তোঁতা হাজী, হাদিরা গ্রামের আব্দুস ছালাম তাদের পেঁয়াজ ক্ষেতের পাশে ছোট করে ঘর তুলে সারা রাত পাহারা দেন পেঁয়াজ চুরির ভয়ে। আগামী ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে ক্ষেতের পেঁয়াজ তুলে রোদে শুকিয়ে নেয়ার পরপরই উৎপাদিত পেঁয়াজ বাজারে বিক্রি করতে পারবেন। কৃষক আজহারুল ইসলাম আজা জানান, এক বিঘা জমিতে পেঁয়াজ ৩০ থেকে ৩২ হাজার টাকা পর্যন্ত খরচ হয়। প্রতি বিঘায় ৩০ মন থেকে ৩৫ মন পর্যন্ত পেঁয়াজ উৎপাদন হয়। শুধু আজহারুল ইসলাম আজাই নন, এখানকার অধিকাংশ কৃষক অধিক মুনাফার আশায় পেঁয়াজ চাষ করে থাকেন। কৃষক আব্দুস ছালাম জানান, আমার পাশের ক্ষেত থেকে এক কৃষকের অনেক পেঁয়াজ চুরি হয়ে গেছে। তার জন্য রাত জেগে পাহারা দেই।

ধনবাড়ী উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফরিদ জানান, এ অঞ্চলের জমি পেঁয়াজ চাষের জন্য খুবই উপযোগী। এখানে পেঁয়াজের ফলনও ভাল হয়। এ বছর এখানকার কৃষকরা পেঁয়াজ চাষে লাভবান হবেন।

ধনবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মাহবুবুর রহমান বলেন, আমরা আশা করছি আগামী দু থেকে তিন সপ্তাহের মধ্যে বাজারে নতুন পেঁয়াজ পুরোপুরি আসবে। নতুন পেঁয়াজ পুরোপুরি বাজারে এলেই দাম ক্রয় ক্ষমতার মধ্য চলে আসবে। পেঁয়াজ পাহারার বিষয়ে তিনি বলেন, কৃষকের পেঁয়াজ রক্ষার স্থার্থে কৃষকরা ক্ষেতেই পাহারা দিতেই পারেন। এটা অস্বাভাবিক কিছু না।

নিউজ টাঙ্গাইলের সর্বশেষ খবর পেতে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি অনুসরণ করুন - "নিউজ টাঙ্গাইল"র ইউটিউব চ্যানেল SUBSCRIBE করতে ক্লিক করুন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.